Top News

Facebook

Search Your Think

PC Tips


Board Closing নিয়ে অনেকের মতামত শুনলাম তবে ব্যাপারটা হচ্ছে এরকম যে আপনি জয়েন করতে লাগবে ৯৬০ টাকা তারপর আপনার আবার জয়েন করাতে হবে তিনজনকে মাথা প্রতি ৯৬০*৩=২৮৮০ টাকা আর সাথে আপনার ৯৬০ টাকা সবমিলিয়ে ৩,৮৪০ টাকা তারপর আপনার আইডি এক্টিভ হবে।
আর যদি আপনি তিনজন কে রেফার না করতে পারেন তবে আইডি বন্ধ লস = গালি দুটোই পাবেন।
আরো সমস্যা হচ্ছে যে আপনি যে তিনজন কে জয়েন করাবেন সে তিনজন কে আবার আরো তিনজন কে জয়েন এবং এক্টিভ করাতে হবে নয়তো বাংলার বাশ আপনার পিছনে।
এবার আসি তিনজনকে এক্টিভ করাতে পারলে আপনার ডেইলি ইনকাম ৪০-৬০ টাকা।
আপনার কাজ Advertise দেখা তাহলে আপনার আয় হবে আর যদি আপনার আয় বাড়াতে হয় তবে আরো বেশী জনগনকে জয়েন করাতে হবে + এক্টিভ ও করাতে হবে।
তাহলে বেশী ইনকাম এর ক্ষেত্রে বেশী রেফার করা জরুরী।
এবার আসি আমার লজিকে,
ধরুন আজ আপনি এক্টিভ করলেন তিন চার মাস থেকে ১ বছর পর্যন্ত আপনার আয় হলো এরপর যদি কোম্পানি বন্ধ হয়ে যায় তখন আপনি কি করবেন।
হাতে হারিকেন গো*য়ায় বাশ নিয়ে তাদের খুজবেন।
কিন্তু এটা অনলাইন আজ যে Legit কাল সে Scam এটাই নেটের পরিস্থিতি।
আর আমি যতটুকু জেনেছি তারা এখন পর্যন্ত পেমেন্ট দিচ্ছে তবে যে কোন সময় বন্ধ করে দিতে পারে তাই যাদের কাজ করার ইচ্ছা আছে তাদের করতে না করছিনা শুধু আমার দেখা অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি।
প্রথম প্রথম সকল সাইট গুলো পেমেন্ট করে কিন্তু যখন তাদের অনেক মেম্বার হয়ে যায় তখন তারা প্রচুর লাভ সহকারে নিজেদের ব্যবসা নিয়ে পালিয়ে যায়।
তখন আপনার অবস্থা ফান্দে পড়িয়া বগা কান্দেরে।
এমন অনেক মানুষ দেখেছি যারা অনলাইনে আয় করতে গিয়ে ফকির হয়ে গিয়েছে তাই আমি শুধু এটুকু বলবো ভাবিয়া করিও কাজ করিয়া ভাবিওনা।
আবার দেখবেন অনলাইনে এমন লোক খুজে পাবেন যারা বলে থাকে ১ মাসে আমার আয় ১ লক্ষ কেউ আমার মত আয় করতে চাইলে যোগাযোগ করো।
এটা তাদের অনলাইনে প্রচারনার জন্য করে থাকে কারন আপনাকে জয়েন করাতে পারলে তার লাভ আসবে তাই অংক টা নিজে কষে লোভ দেখাচ্ছে।
এবার আসি আমার কেন এই ভিন্ন মতামত কারন হলো আমার দেখা ৮০% বাংলাদেশী সাইট গুলো ফেক হয়ে থাকে প্রথম প্রথম পেমেন্ট দেয় তারপর হারিয়ে যায়।
যারা অনলাইনে নতুন তারা বুঝে শুনে কাজ করবেন কারন এখানে প্রতারণা করার মত লোকের অভাব হয়না।
এবার আসি কেন আপনাকে তারা টাকা দিচ্ছে তারা মূলত আপনাকে দিয়ে কাজ করিয়ে নিচ্ছে যার বদলে ধরুন তারা ১০০ টাকা আয় হচ্ছে সেখান থেকে আপনাকে ৪০ দিচ্ছে তার মানে আপনার মাথায় কাঠাল ভেংগে খাচ্ছে কাজ করছেন কষ্ট করে আপনারা আর তারা বসে বসে পাচ্ছে।
একদিন হয়তো তাদের ইভেন্ট বন্ধ হয়ে যাবে আর তারা
আপনাকে কচুর আটি রান্না করতে দিয়ে বিদায় জানাবে তাই সাবধান থাকতে দোষ কি?
এবার আসি যাদের অনেক আয় হয় বলে চিল্লায় তাদের থেকে প্রেমেন্ট প্রুফ দেখে আসুন পারলে বলুন লাইভ পেমেন্ট নিয়ে দেখাতে দেখবেন তখন মুরগী ফাইসা যাইবো যদি ফেক হয়ে থাকে।
এবার আসি শিউর কিভাবে হবেনঃ
প্রথমে তাদের হেড অফিসে যান যারা কাজ করে তাদের চিনে রাখুন তাদের সম্পর্কে একটু ঘাটুন তারপর না হয় জয়েন দিয়েন।
নয়তো আম ছালা দুটোই যাবে।
আর যদি অনলাইনে ইনভেস্ট করে কাজ করতেই চান তবে আমার সাথে যোগাযোগ করুন যারা ১০-২০ বছর ধরে সাইট কিংবা ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে পেরেছে পৃথিবী জুড়ে তাদের ঠিকানা দিয়ে দিবো।
আর একটা কথা বলে নেই নেট এ আয় হাতের মোয়া নয় তাই সতর্ক থাকুন।
আর পারলে ফ্রিল্যান্সিং এর কোর্স করুন এতে আজীবন আয়ের পথ হয়ে যাবে যা কখনো বন্ধ হবেনা।
তাহলে ভালো থাকুন দেখা হবে অন্য কোন সময় নতুন কিছু নিয়ে।

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি
King Of Fighter XIII
চলুন তাহলে শুরু করা যাক আজকের রিভিউ আর সবশেষে ডাউনলোড লিংক তো রয়েছেই


গেমসের দোকানে ফাইটিং গেমস এর কথা মনে করলেই সামনে এসে দাঁড়ায় King OF Fighter সিরিজ যা কিনা আপনারা অনেকেই গেমসের দোকান গুলোতে কয়েন কিনে খেলেছেন আবার অনেকে মোবাইল কিংবা পিসি থেকে খেলেছেন। আর এই King Of Fighter সিরিজটি অনেকের পছন্দের তালিকায় রয়েছে তবে এর শুধু একটাই সমস্যা ছিলো যা কিনা লো কোয়ালিটির গ্রাফিক্স তাই এবার আপনাদের জন্য উচ্চ কোয়ালিটির গ্রাফিক্সের King OF Fighter XIII শেয়ার করবো।






King OF Fighter XIII Review:

King OF Fighter XIII একটি ফাইটিং ক্যাটাগরীর গেমস যা King Of Fighter সিরিজের অন্তর্ভুক্ত।
King OF Fighter XIII গেমসটি Develop এবং Publish করেছে SNK PlayMore.
King OF Fighter গেমসটি জুলাই মাসের ১৪ তারিখ ২০১০ সালে প্রথম প্রকাশ করা হয়।
King OF Fighter XIII গেমসটি বর্তমানে খেলা যাবে যে সকল প্লাটফর্ম থেকে তা হলোঃ
PlayStation 3, Android, Xbox 360, iOS.
এই গেমসটি আপনি দুভাবে খেলতে পারবেন আর তা হলোঃ
Single Player Mode অথবা MultiPlayer Mode. 



এই গেমস এ পাবেন প্রথমত হাই কোয়ালিটির গ্রাফিক্স আগের তুলনায় অনেক বেশী Character আর সাথে অসাধারন সব সুপার পাওয়ার ভিউ এবং Gameplay এর অভিজ্ঞতা। গেমসটি যত খেলবেন ততো আপনার ফাইটিং দক্ষতা বাড়বে। যেহেতু এর গ্রাফিক্সটা উচ্চ মানের তাই সাইজটাও একটু উচ্চমানের হবে।আর পাশাপাশি এটা Paid করে খেলতে হয় তাই চাইলে আপনি ক্রয় করেও খেলতে পারেন আর যদি তা না পারেন তবে কিভাবে Full Version করবেন তার ট্রিক শেষের দিকে উপস্থাপন করবো।
তবে তার আগে চলুন দেখে নেই গেমসটি খেলতে পিসিতে যে Configuration দরকার হবে।

The King of Fighters XIII System Requirements (Minimum):

CPU: Intel Pentium4 2.0 GHz and up
CPU SPEED: Info
RAM: 1 GB
OS: Windows XP
VIDEO CARD: GeForce 9500 GT, or Radeon HD 2600, VRAM: 256MB and up
PIXEL SHADER: 3.0
VERTEX SHADER: 3.0
SOUND CARD: Yes
FREE DISK SPACE: 5 GB
DEDICATED VIDEO RAM: 256 MB

The King of Fighters XIII Recommended Requirements:

CPU: Intel Core i5 2300 and up
CPU SPEED: Info
RAM: 4 GB
OS: Windows 7
VIDEO CARD: GeForce GTS 250 or Radeon HD 4850, VRAM: 512MB and up
PIXEL SHADER: 4.0
VERTEX SHADER: 4.0
SOUND CARD: Yes
FREE DISK SPACE: 5 GB
DEDICATED VIDEO RAM: 512 MB

এই তো গেলো পিসির কনফিগারেশন ডাউনলোড করার আগে কিছু স্ক্রিনশর্ট দেখে নেওয়া যাক তারপর না হয় ডাউনলোড এর লিংক।

The King of Fighters XIII ScreenShort:












The King of Fighters XIII Download Link:

প্রথমেই বলেছি ডাউনলোড সাইজ একটু বেশীই হবে তবে তাড়াতাড়ি যাতে ডাউনলোড করে নিতে পারেন সেকথা মাথায় রেখে গুগল ড্রাইভে আপলোড করে দিয়েছি।

Size 2.1GB



The King of Fighters XIII Installation Process:

আপনি Zip ফাইলটি Extract করে নিবেন তাহলে Setup ফাইল পেয়ে যাবেন তারপর ইন্সটল করে ফেলুন আর হ্যা ইন্সটল হয়ে গেলে ওপেন করবেন না ভুলেও।

আপনি Crack নামে একটি Folder পাবেন তাতে প্রবেশ করলে উপরের ছবির মত ২টি Steam_api.dll এবং Steam _api ফাইল পাবেন সেগুলো কপি করে নিন।

এবার যে Folder এ আপনি Install করেছেন গেমসটি সেখানে গিয়ে কপি করা ফাইল Paste করে দিন।

ব্যস আপনার গেমস সম্পূর্ন ভাবে প্রস্তুত খেলার জন্য।

যদি তারপরেও না বুঝে থাকেন তবে ভিডিওটি দেখে নিন।আর গেমস টি উপভোগ করুন।

তাহলে আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।
সৌজন্যেঃ DarkMagician.Xyz

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ হাজির হয়ে গেলাম অদ্ভুত এক টপিক নিয়ে আলোচনা করার জন্য যার টাইটেল Suicide Plant - Gympie Gympie কেন এ নিয়ে লিখতে যাচ্ছি বিস্তারিত পড়ুন বুঝে যাবেন।




এমন কি কখনো শুনেছেন বা ভেবেছেন যে একটি গাছ কিংবা পাতা স্পর্শ করার কারনে মানুষ আত্মহত্যা করতে পারে শুধু তাই নয় এর সংস্পর্শে এলে প্রানীরাও আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়ে যায়।



এর কারন কি তা বলছি জেনে নিনঃ


প্রথমত এই গাছের পাতায় রয়েছে অধিকহারে Neurotoxin বা  বিষ যা ছুয়ে ফেললে ১৫ মিনিটের মাথায় একজন সুস্থ মানুষের মৃত্যু ঘটাতে সক্ষম তবে তার প্রয়োজন হয়না কারন এই পাতা ছুয়ে ফেলার সাথে সাথে শরীরে আরম্ভ হয়ে যায় Acid এবং Electrocuted এর অনুভূতি যা মানুষ হোক আর প্রানীই হোক তাকে তীব্র যন্ত্রনা দিয়ে পাগল করে দিবে আর সেই কষ্ট সহ্য করতে না পেরে মানুষ কিংবা প্রানীরা করে ফেলে আত্মহত্যা কারন তাদের কাছে তখন মরনটাই এর থেকে বাঁচার উপায় বলে মনে হয়ে থাকে।


শুধু তাই নয় একটি করুন অভিজ্ঞতা দিয়েছিল Cyril Bromley নামে এক ব্যক্তি যে কিনা WWII Training এর সময় হাসপাতালে অসহনীয় যন্ত্রনা নিয়ে ভর্তি হয় ১৯৬৩ সালে সে তার সিনিয়র কর্মকর্তা কে জানায় যে সে Gympie Gympie এর পাতা টয়লেট পেপার হিসাবে ব্যবহার করে ফেলেছিলেন তারপর থেকে তার এই অবস্থা। সে এই অসহনীয় ব্যথা তাকে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত ভুগতে হয়।
তাহলে বুঝতেই পারছেন যে এই পাতা ছুয়ে ফেলা মানে কত বড় ভুল করে ফেলা।

এর থেকে বাচা সম্ভব কিন্তু এর যন্ত্রনা সহ্য না করতে পেরে মানুষ কিংবা প্রানী আত্মহত্যা করে ফেলে।
আর যদি বেঁচেও যায় তবে তা অনেক কষ্ট দায়ক হয়ে পড়ে। আর মূলত এই কারনে একে Suicide Plant হয়ে যায় এর নাম।


এই Gympie Gympie গাছে ফল ধরে এবং তা খাওয়াও যায় তবে কথা হলো কে চাইবে এই মারাত্মক ঝুকি নিতে কারন তা যতই মজাদার হোক না কেন।


এই গাছ পাওয়া যায় Australian Rainforest এ তাই বলে ঝুকিমুক্ত ভাববেন না বাংলাদেশের কোন পাগল উদ্ভিদ প্রেমী এই গাছ এনে বাংলাদেশে রোপন করে দেয় নি তো.....।।

তাহলে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু কেমন লাগলো আজকের এই ভিন্ন রকম আয়োজন।
এই পোষ্ট হতে বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।

সৌজন্যেঃ Dark Magician

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছে আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি

ডাউনলোড করে নিন 49.95 Dollar মূল্যের AAA Logo Maker পিসি সফটওয়্যার আর Logo ডিজাইন করুন আপনার মনের মত ।


আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করবো ৪০৬৭ টাকা মূল্যের উইন্ডোজ সফটওয়্যার ।

কি করা যাবে সফটওয়্যার টি দিয়ে ?

আপনি সফটওয়্যার টি দিয়ে Logo , Banner তৈরী করতে পারবেন ।
যেমন ধরুন চাইলেই Youtube Intro , ফেসবুক কভার ইত্যাদি কাজে ব্যবহার করতে পারবেন ।

যেসব ফিচার উপভোগ করতে পারবেনঃ

AAA লোগো দিয়ে আপনি প্রায় যে কোন ধরণের ওয়েবসাইট, গ্রাফিক্স বা উচ্চ রেজুলেশন প্রিন্টিংয়ের জন্য গ্রাফিক্স ডিজাইন তৈরি করতে পারেন।  আপনার ওয়েবসাইটের জন্য লোগো, ব্যানার, বোতাম, শিরোনাম এবং আইকন। ব্যবসায়ী কার্ড, লেটার হেডস, পোষ্টার এবং অন্যান্য ব্যবসায়িক গ্রাফিক্স ডিজাইন AAA সফটওয়্যার থেকে সরাসরি তৈরী করতে পারবেন এবং সাথে Import এবং Export সুবিধা তো আছেই।

AAA Logo Maker  বেশিরভাগ শিল্প, প্রযুক্তি, আর্থিক, স্বাস্থ্যসেবা, সাধারণ ব্যবসায় এবং খুচরা, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ, ভ্রমণ ও পর্যটন, সংগঠন, ক্রীড়া এবং ফিটনেস, খাদ্য এবং পানীয় সহ বিভিন্ন ধরনের ব্যবসার গ্রাফিক্স ডিজাইনের

কাজে ব্যবহার করা হয় ।
অভিজ্ঞতা ছাড়াও কয়েকটি ক্লিকের মধ্যে একটি Professional Logo বানিয়ে ফেলতে পারবেন। আপনি হাজার ডিজাইনের ভিতর থেকে যে কোন একটি পছন্দ করুন এবং সাজিয়ে নিন আপনার মনের মত করে শুধুমাত্র  সম্পাদনা করে । চাইলে নিজের বানানো Scratch থেকে বানিয়ে ফেলতে পারবেন আপনার ডায়নামিক ডিজাইন।

কি আছে নতুন ভার্সনে AAA Logo 2019:

নতুন ভার্সনে ১০,০০০ Vector আইকন যোগ করা হয়েছে যা আপনি ক্যাটাগরী অপশনে পাবেন।
Automatic Canvas সাইজ তৈরী করবে অথবা চাইলে নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী ছোট / বড় করতে পারবেন।
রঙ পছন্দ করতে পারবেন আপনার Canvas এর জন্য Colour মেনু থেকে।
Logo, টেমপ্লেট এবং Banner গুলো পুনরায় ব্যবহার করতে পারবেন সঞ্চয় না করে।
তাহলে আর দেরী কেন যদি মনে করেন সফটওয়্যারটি আপনার দরকার নিচের লিংক থেকে ডাউনলোড করে নিন।
ডাউনলোড
pass: saikatbd
আজকের জন্য বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হলাম

 Format Factory 4.9.0.0 Windows PC Converter 


এটা নিয়ে তেমন কিছু বলার নাই তবে এটি আমার কাছে জনপ্রিয়তার শীর্ষে কারন মূলত এটি ফ্রী , নাই লাইসেন্স এর ঝামেলা আর এর ফিচার যা অনেকটা প্রিমিয়াম Converter এর মত ।



দেখে নিন এর ফিচারঃ




যে কোন ভিডিও ফাইল থেকে  MP4/3GP/MPG/AVI/WMV/FLV/SWF Format এ Convert করতে পারবেন




 যে কোন অডিও ফাইল থেকে  MP3/WMA/AMR/OGG/AAC/WAV Format এ Convert করতে পারবেন




 যে কোন  Picture ফাইল থেকে JPG/BMP/PNG/TIF/ICO/GIF/TGA Format এ Convert করতে পারবেন





 চাইলে DVD Rip করে ভিডিও অথবা অডিও Convert করতে পারবেন ।

এছাড়াও যে সকল সাপোর্ট করবে iPod/iPhone/PSP/BlackBerry format ।

পারবেন Watermark বসাতে এছাড়াও আছে  RMVB , AV Mux সাপোর্ট ।

দেখে নিন ব্যবহারকারী দের দেওয়া রিভিউ

আরো আছে PDF থেক Html করা

ভিডিও , অডিও Joiner.

৬২ টি ভাষা Support .করে তার মধ্যে আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো ২১ শে ফেব্রুয়ারীর বাংলা ভাষা যা আমাদের মাতৃভাষা ।
                                       
যদি ভাল লাগে তবে Install করে দেখতে পারেন।




যদি রিভিউ টি ভাল লাগে তবে কমেন্টে জানাবেন ।
আর যদি মনে করেন Format Factory আপনার দরকার তবে নিচে লিংক দেওয়া হলো।






আজকের  জন্য বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে




সৌজন্যে ঃ সাইবার প্রিন্স 

হ্যালো প্রিয় বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছেন
আজ আপনাদের মাঝে হাজির হয়েছি অন্য রকম কম্পিউটার অপারেট এর ট্রিক নিয়ে। আজকের পোষ্টে আলোচনা করবো কিভাবে একটি কম্পিউটারে হার্ড ডিস্ক ছাড়া উইন্ডোজ চালানো সম্ভব তা নিয়ে চলুন দেখে নেওয়া যাক।


অনেক সময় দেখা যায় হার্ড ডিস্ক নষ্ট তাই পিসি রেখে দেই জাদুঘরে অথবা স্টোর রুমে। তখন কি আর করা বলে ওটার চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দেই যতক্ষন না নতুন একটি হার্ড ডিস্ক কিনে আনা হচ্ছে। তবে আমরা চাইলেই সেই পড়ে থাকা কম্পিউটার কে কাজে লাগিয়ে উইন্ডোজ চালাতে পারি হার্ড ডিস্ক ছাড়া।এই ট্রিক টির মাধ্যমে হয়তো আপনি সেরে নিতে পারবেন আপনার প্রয়োজনীয় কাজ গুলো।

                  আপনি হয়তো ভাবছেন উইন্ডোজ টা তাহলে কিভাবে চালু হবে যেহেতু তার Storage এই থাকবেনা। 
(আলাদিনের জীন আইসা জাদু দিয়া উইন্ডোজ চালাইবো নাকি ?)- Just For Fun :)


 আপনাকে স্বাগতম একটু সহজ করে বলছি নিচে থেকে দেখে নিন এই Experiment করতে কি লাগবে:


1. একটি Pen Drive 32 GB .


2. Windows 7,8,10 এর ISO ফাইল।



3. WinToUSB এর Full Version সফটওয়্যার ।



টিউটোরিয়াল শুরু করার আগে সফটওয়্যার সম্পর্কে কিছু জেনে নেওয়া যাকঃ


WinToUsb

এই  সফটওয়্যার টি তৈরী করেছে The EasyUEFI Development Team.
WinToUSB সফটওয়্যার টি প্রথম প্রকাশ করা হয় ২০১৬ সালের জুলাই মাসের ৬ তারিখ।


বর্তমানে এর তিনটি ভার্সন পাওয়া যায়ঃ

১. WinToUSB (Free)
২. WinToUSB Professional - মূল্য ২৯.৯৫ ডলার
৩. WinToUSB Enterprise    - মূল্য ১৯৯.৯৫ ডলার

আমাদের অবশ্যই WinToUSB Enterprise লাগবে কারণ এর ফ্রি ভার্সনে আপনি সকল সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন না।
WinToUSB দিয়ে অনেক ধরনের কাজ করা যায় তবে আমি শুধু Experiment এর জন্য যা প্রয়োজন তাই দেখাব।


তাহলে চলুন ফিরে যাওয়া যাক টিউটোরিয়ালেঃ


ধরুন আপনার একটি কম্পিউটার রয়েছে তার Hard Disk নষ্ট তাই চালাতে পারছেন না তবে আপনার কাছে একটি Pen Drive রয়েছে তবে আপনি কিন্তু চাইলে সেই Pen Drive এ Windows ইন্সটল করতে পারবেন অথবা চাইলে একটি Portable Windows তৈরী করে নিতে পারেন যাতে যে কোন কম্পিউটার থেকে তা চালাতে পারেন।

এর সুবিধা হলো আপনি উইন্ডোজ টি Hard Disk ছাড়াও চালাতে পারবেন অথবা Pen Drive এ বহন করতে পারবেন।

আমি একটি ছোট্ট উদাহরন দিচ্ছি আরো ভালোভাবে বুঝানোর জন্যঃ


"ধরুন আপনার পিসির উইন্ডোজ নষ্ট হয়ে গেল এবং আপনার কাছে সেই মুহুর্তে উইন্ডোজ দেওয়ার মত সময় নেই অথবা উইন্ডোজ ইন্সটল দেওয়ার সামগ্রী নেই কিন্তু আপনার একটি জরুরী ফাইল না হলেই নয় তখন হয়তো আমার আইডিয়া টি আপনার কাজে লাগতে পারে , তখন আপনি পেন ড্রাইভ থেকে উইন্ডোজ চালু করে Hard Drive থেকে File সংগ্রহ করতে পারবেন।"


"অথবা কারো পিসি পাসওয়ার্ড দেওয়া তখন আপনি চাইলে তার পিসির পাসওয়ার্ড না জেনেই তার Hard Disk এ ঘুরে বেড়াতে পারবেন।"

এছাড়াও অনেক কিছুই হয়তো করা যাবে যা আপনার মস্তিষ্ক কাজে লাগিয়ে খুজে নিবেন।

তাহলে প্রথমে ডাউনলোড করতে হবে সফটওয়্যার টি যা পোষ্টের শেষ প্রান্তে সংযুক্ত রয়েছে ডাউনলোড এবং Extract করে ফেলুন।

 প্রথমে WinToUSB ওপেন করুন।


ISO আইকনে ক্লিক করুন Browse করে আপনার ডাউনলোড করা Windows এর ISO ফাইলটি Select করে দিন।

এখন কথা হলো  Windows ISO ফাইলটি যদি আপনার কাছে থাকে তবে ভালো নয়তো নিচে থেকে  ডাউনলোড করে নিন Stylish  Alien Windows 7 এর ISO.



Download হয়ে গেলে উপরের স্টেপ টি শেষ করুন এবং Next বাটনে ক্লিক করুন।

Please Select The Destination Disk এর ঘরে আপনার Pen Drive টিকে নির্বাচন করুন।
এরপর MBR for BIOS and UEFI নির্বাচন করতে চেক বক্সে ক্লিক করুন এবং সবশেষে Yes বাটনে ক্লিক করুন।

কিছু মুহুর্ত আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে 

এবার VHD নির্বাচন করুন Win7 এর জন্য এবং VHDX দিন Win 8/10 এর জন্য এবং আপনার Pen Drive এর ১০০% Storage নির্বাচন করে Next বাটনে ক্লিক করুন।

এখন অপেক্ষার পালা । একটা কথা অনেক কে বলতে শুনেছিলাম যে 
"আশায় থাকো কাউয়া পাকলে খাইয়ো ডাঊয়া"
 আমার মনে হয় কথাটি দিয়ে তারা বুঝাতে চেয়েছে অপেক্ষা করো ফলটি পেকে গেলে তার পর খেয়ো।
আমার অবস্থাও ঠিক একই রকম।
তবে কথায় আছে "সবুরে মেওয়া ফলে" তাই অপেক্ষা করতেছি।


অবশেষে ১০০% সম্পূর্ণ হলো এখন Exit বাটনে ক্লিক করুন।
এবার আপনি যে কম্পিউটার থেকে উইন্ডোজ চালাতে চান সেই পিসিতে পেন ড্রাইভ সংযুক্ত করে Boot Menu তে চলে যান।


এবার আপনার কম্পিউটার এর ব্রান্ড অনুযায়ী  Boot Menu তে প্রবেশ করে Pen Drive নির্বাচন করুন।



Pen Drive এ Windows ইন্সটল না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন । সময় লাগবে মোটামুটি যেমন টি আপনার উইন্ডোজ ইন্সটল দেওয়ার সময় লেগে থাকে আর কি।

সম্পূর্ন শেষ হয়ে গেলে নিচের মত চালু হয়ে যাবে আপনার Portable Windows 7.





এবার আপনি চাইলে হার্ড ডিস্ক নেই এমন পিসিতে চালাতে পারবেন উইন্ডোজ ৭ অথবা ব্যবহার করতে পারবেন Portable Windows হিসাবে অথবা পাসওয়ার্ড ব্যতীত যে কোন পিসিতে প্রবেশের জন্য।

সবশেষে WinToUSB Download Link নিচে দেওয়া হলো।

Download Link

আর এভাবে আপনি চাইলে উইন্ডোজ ৭/৮/১০ যে কোন একটি পোর্টেবল করে চালাতে পারবেন।
তবে আপনার পিসির Ram ২GB এর উপরে হলে ভালো হয়।

যদি কোন সমস্যা থাকে তবে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু।

তাহলে আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে ।

সৌজন্যেঃ সাইবার প্রিন্স এবং আমার ব্লগ 

Blogger

Android Games

Scientific

Online Trick