2019

যাদের ব্লগ আছে তারা আসলেই একটা বিশেষ বিপাকে পরি।যেটা হচ্ছে আপনার সাইটে ট্রাফিক যায় না।এর জন্য প্রথমে এডসেন্স পাওয়া এবং ভালো র‍্যাংক করাও সম্ভব হয় না।যার কারনে সাইট বানানোর মূল লক্ষ্য ইনকাম হয় না।এতে সময় এবং টাকা সব নষ্ট হয়।
আবার অনেক সাইট এবং অ্যাপ আচগে যারা টাকার বিনিময় ট্রাফিক দেয় যার মূল্য অনেক বেশি।একজন বিগেনার এর পক্ষে সম্ভব না।

এবার আসি আরেক টপিকে।তা হলো আমি আমার আগের wap4dollar হ্যাকের পোস্টে বলেছিলাম আপনার সাইটে ভিজিটর আসলে বা বট দিয়ে ভিজিটর দিলে অটোমে<টিক একটি ক্লিক পরে যাবে প্রতিবার

 পোস্টটি দেখতে ক্লিক করুন

আজকে যেই Traffic bot সেয়ার করব আপনাদের সাথে তা থেকে আপনি চাইলে প্রতি ইচ্ছামত ভিজিটর এবং ইচ্ছামত সময় আপনার সাইটে stay করাতে পারবেন।এতে সাইটের ভিউয়ার টাইম বাড়বে এবং বাউন্স রেইট কমবে।এতে এডসেন্স পেতে সহজ হবে।
সেইসাথে wap4dollar এর হ্যাকেও ব্যবহার করতে পারবেন। 

তাই এখন দেরি না করে নিচে থেকে আপ্পটি ডাউনলোড করুন;

এবার ডাউনলোড শেষে দেখে নিন কিভাবে অ্যাপটি ব্যবহার করে ট্রাফিক নিবেন এবং wap4dollar দিয়ে আনলিমিটেড  ইনকাম করবেন।

$$অ্যাপটি চালু করার পর এমন একটি ইন্টারফেস আসবে।এখানে  ১০-১২ সেকেন্ড  লোড নিবে সকল স্ক্রিপ্ট লোড হবার জন্য।এরপর স্ক্রিপ্ট লোড হয়ে গেলে পরের পেইজে রিডাইরেক্ট হয়ে যাবেন যেখান থেকে আপনি ভিজিটর নিবেন।
   $$নতুন পেইজ লোড হলে নতুন পেইজটি জুম আউট করবেন এবং উপরের ডান দিকে দেখবেন আপনার দরকারি ৪ টি বক্স।
  $$এখানে দেখুন ১ টি বক্সে URL দেওয়ার অপশন রয়েছে এখানে আপনি আপনার সাইট/পেইজের লিংক দিবেন যেখানে ভিজিটর নিবেন।এরপর লিংক বক্সের ঠিক নিচে রয়েছে প্রতি সেকেন্ডে আপনি কত ভিজিটর নিতে চান তার সংখা।এরপর দেখুন লাল একটি বাটন রয়েছে যেখানে আপনি ক্লিক করে ভিজিটর নেওয়া শুরু করতে পারবেন।এরপর লাল বাটনের নিচের বক্সে দেখতে পারবেন আপনি কত ভিজিটরের রিকুয়েস্ট করেছেন এবং কত ভিজিটর সেন্ড হয়েছে।

$$এবার দেখুন আমি আমার প্রুফ দেওয়ার জন্য আমার ব্লগের পোস্টে ভিজিটর নেব।
ভিজিটর নেওয়ার আগের ছবি দেখুনঃ
$$দেখুন এখন তেমন কোনো ভিজিটংং নেই আমার পোস্টে।এবার এই পোস্টের URL নিয়ে আমার Traffic generator এ যেয়ে সেই পোস্টের লিংক দিব
   $$এবার দেখবেন আমার সাইটে কত ভিজিটর পেয়্ব গেছি।
 $$দেখুন যত রিকুয়েষ্ট করেছি তত টা না পেলেও যথেষ্ট পেয়ে গেছি।  অ্যাপ এ যত দেখাবে এর চেয়ে কিছুটা কম পাবেন কারন ২০০+ ভিজিটর যেতে কিছু সময় লাগে আর যেহেতু Analytics সেইফ তাই কম ও ভালো।

অবশ্যই পড়ুনঃ   কোনো কিছুতেই লোভ করা ঠিক না।তাই অল্প করে নিবেন।যেমন ১০০-১৫০ নিবেন ১ বারে।১ বার নেবার ১-২ ঘন্টা পর আবার নিবেন।এতে আপনার  এডসেন্স পাবার আগে Wap4dollar এ ভালো ইনকাম হবে।আর বলে রাখি এডসেন্স পাবার পর ভুলেও আর নিবেন না।কারন গুগল এডসেন্স সবার থেকে বেশি চালাক।এডসেন্স তা ধরে ফেলবে আর সাসপেন্ডও করে দিবে।কিন্তু Wap4dollar তা ধরতে পারে না।

      যেকোনো প্রয়োজনে আমি ফেসবুকে  
স্পুফিং……অনেকেই হয়তো জানেন বিষয়টি কি।তবুও সবার ক্লিয়ার হওয়ার জন্য আমি আবার বলে দিচ্ছি।
Email Spoofing হলো কারো ইমেইল এক্সেস না নিয়ে তার ইমেইল ঠিকানা ব্যবহার করে অন্যকে ইমেইল পাঠানো।যা হ্যাকারদের প্রাথমিক শিক্ষার অংশ।
হ্যা,এখন আপনিও চাইলে ইমেইল স্পুফিং করতে পারবেন। যদিও অ্যাপটি পেইড এবং বিশেষ ক্লাইন্ট ছাড়া কাউকে সরবরাহ করে না তাই সবার হাতের নাগালের বাহিরেই থেকে যায়।কিন্তু আজ আমি একদম ফ্রিতে অ্যাপটি আপনাদের মাঝে সেয়ার করব।
তাই দেরি না করে এখনই অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিন।
ডাউনলোড করতে

ক্লিক করুন


তো এবার হয়ে গেল আপনার অ্যাপটি ডাউনলোড করা।এখন আসল কাজে চলে আসি কিভাবে আপনিও ইমেইল স্পুফিংং করবেন।

তার জন্য নিচের স্টেপ গুলো ভালো করে দেখুন।


অ্যাপটি চালু করলেই উপরের মতো স্ক্রিন আসবে এবং সেখানে দেখবেন উপরে লেখা Security step1 এরপর পাবেন লগিন অপশন,এরপর দেওয়া আছে কোথায় পাবেন লগিন করার ইউজার নেইম এবং পাসোয়াড।
লেখা আছে নিচের হলুদ বাটনে ক্লিক করলেই পেয়ে যাব আমার লগিন করার তথ্য।তাই সেখানে ক্লিক করলাম।

নতুন পেইজ চালু হলো এবং সেখানে ইউজার নেইম এবং পাসোয়াড দেখাচ্ছে।এবার ইউজার নেইম,পাসোয়াড কপি করে Home বাটনে ক্লিক করে আগের পেইজে চলে আসলাম এবং লগিন বক্সে তথ্য দিয়ে Login এ ক্লিক করলাম।

লগিন এ ক্লিক করলে আবার সিকিউরিটি এর ২য় পেইজ আসবে।এই পেইজেও সেই প্রথমে কপি করা ইউজার নেইম,পাসোয়াড দিয়ে login করুন।

এবার আসবে ফাইনাল স্টেপ।যেখানে সেই আগের তথ্য দিয়ে আবার লগিন করলেই আমাদের আসল পেইজ চলে আসবে।

এবার দেখুন চলে আসল আমাদের মুল পেইজ।এতক্ষনে যেগুলো পার করে আসলাম তা ছিল মূলত সিকিউরিটি বাড়ানোর জন্য।

এখানে দেখুন ৬ টা বক্স আছে।একদম উপরের বামের বক্সে দিবেন যেই মেইল থেকে মেইল স্পুফিং করতে চান সেই ঠিকানা।যেহেতু আমি ডেমু দেখাচ্ছি তাই আমি ট্রিকবিডি এর সাপোর্ট মেইল ব্যবহার করলাম।ডানের বক্সে দিবেন যার নাম থেকে মেইল পাঠাবেন।এরপর এর বক্সে দিবেন মেইল এর বিষয়।
এরপর বড় বক্সগুলোর বাম দিকের বক্সে দিবেন আপনার মেইলটি।চাইলে আপনি HTML দিয়ে সুন্দর করে লিখতে পারবেন।এরপর ডানের বক্সে দিবেন যার ইমেইল ঠিকানায় আপনি মেইল করবেন তার এড্রেস।
ব্যাস কাজ শেষ।এবার সেন্ড এ ক্লিক করবেন এবং আপনার মেইল চলে যাবে ৫ সেকেন্ডের মধ্যে।
[h1]Proof:[/h1]


দেখলেন তো কত সুন্দর করে ইমেইল স্পুফিং শিখে গেলেন।তাও আবার একদম ফ্রি তে কোনো কম্পিউটার ব্যবহার না করেই।
আমি Mr.মাস্ক এবং ট্রিকবিডি এর সাথেই থাকুন। ইনশাআল্লাহ নতুন এবং দারুন সকল টপিক শিখতে এবং জানতে পারবেন ১০০% প্রুফের সাথে।
মনে রাখবেন আমি কোনো হ্যাকিং বা খারাপ কাজের উদ্দেশ্য এটি সেয়ার করি নাই।শুধু জ্ঞান অর্জন এর জন্য সেয়ার করলাম।কেউ খারাপ কাজে ব্যবহার করবেন না।সাথে কোনো ঝামেলায় জড়িত হলে আমি কোনো ভাবে দায়ী থাকবে না।
আজ এটুকুই আবার আসব আরও নতুন ট্রিক নিয়ে।
আমি ফেইসবুকে
হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি Wikipedia একাউন্ট খোলার টিউটোরিয়াল নিয়ে চলুন শুরু করা যাক।
Wikipedia নিয়ে বলার মত কিছু নেই এক কথায় এই সাইটটিতে পৃথিবীর কম বেশী সকল জিনিস সম্পর্কে আপনি জানতে পারবেন এমন সকল আর্টিকেল নিয়েই এই সাইটটি গঠিত এছাড়াও এর আর্টিকেল গুলো আপনার ভাষায়ও চাইলে আপনি পড়তে পারবেন।

এছাড়াও আপনি যদি চান যে আপনিও একজন লেখক হবেন WIkipedia সাইটের তবে আপনার একটি একাউন্ট থাকা জরুরী।তাহলে আপনি অনেক আর্টিকেল Edit করতে পারবেন সাথে নিজের আর্টিকেল এখানে প্রকাশ করতে পারবেন আছে আপলোডের সুবিধা আরো থাকবে নিজের একটি পেজ ক্রিয়েটের সুবিধা তাহলে আপনি কেন পিছিয়ে থাকবেন করে নিন আপনার জন্য একটি একাউন্ট আজই।

তাহলে প্রথমে চলে যান নিচের লিংকে আর তৈরী করে ফেলুন নিজের একটি একাউন্ট আর সাথে আপনার তথ্য সেখানে দিয়ে অন্যদের জানতে সাহায্য করুন।


এবার আপনার ব্রাউজারে Wikipedia সাইট লোড হয়ে গেলে Create Account এ ক্লিক করুন।
এবার একটি রেজিস্ট্রেশন ফর্ম আসবে এখানে আপনার সম্পূর্ন তথ্য দিয়ে পূরন করুন এবং সবশেষে Captcha পূরন করে Create Your Account এ ক্লিক করুন।
তাহলে হয়ে গেলো আপনার নিজের একটি Wikipedia একাউন্ট।


মোট কথা এই সাথে সব ধরনের তথ্য সংরক্ষন করা হয় তাই আপনি চাইলে আপনার জানা কোন তথ্য অথবা আপনার গ্রাম কিংবা আপনার এলাকা অথবা যে কোন জিনিস সম্পর্কে এখানে তথ্য তুলে ধরুন হয়তো আপনার দেওয়া তথ্য অনেকের কাযে আসবে অথবা আপনার হাত ধরে আপনার গ্রাম কিংবা মহল্লার তথ্য Wikipedia তে জমা হবে।
আজকের পোষ্ট এই পর্যন্তই দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।
সৌজন্যেঃ সাইবার প্রিন্স

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি PUBG MOBILE গেমসটিতে Car Fly, High Jump, ESP, Aimbot, Fast Landing ব্যবহারের নিয়ম জানাবো বলে তাহলে চলুন শুরু করা যাক।



কাজটি করতে আপনার যা প্রয়োজন পড়বেঃ

১. কম্পিউটার।
২. Gameloop Emulator
৩. VN-Hax


যাদের পিসিতে এই ট্রিক টি চালানোর কথা চিন্তা করছেন তাদের বলে নেই কাজটি করতে আপনার 4GB+ MB প্রয়োজন পড়বে। আর আপনার পিসির কনফিগ 8GB Ram , 3.20Ghz Processor, 4GB Graphics থাকতে হবে।


এবার নিচের লিংক থেকে Emulator টি ডাউনলোড করে নিন।



এবার ডাউনলোড হয়ে গেলে নিজ দায়িত্বে install করে ফেলুন মনে রাখবেন install করার সময় আপনাকে ইন্টারনেট চালু রাখতে হবে কারন সম্পূর্ন Installation টি অনলাইনে হবে।


Install হয়ে গেলেই শেষ নয় এবার আপনার কাজ হবে Emulator চালু করে Games Center থেকে PUBG গেমসটি ডাউনলোড করা এবং Install হয়ে গেলে আপনি খেলতে পারবেন।


এবার চাইলে আপনি PUBG খেলা আরম্ভ করতে পারেন আর যদি Hack করতে চান তবে নিচের স্টেপ গুলো দেখতে থাকুন।


আপনার Emulator থেকে PUBG Mobile চালু করুন।


এবার আপনার আইডি তে লগিন করুন নয়তো Guest Account দিয়ে চেক করুন।


এবার যদি আপনার আইডিতে লগিন করে ফেলেন তাহলে নিচের লিংক থেকে VN-HAX ডাউনলোড করে ফেলুন।


ডাউনলোড হয়ে গেলে Extract করুন।


এবার EXE ফাইলটি কে Administrator Mode এ চালু করুন।


এবার আপনি আপনার গেমসটিতে উপরের ছবির মত দেখতে পাবেন এবার আপনার কাজ ছবিতে দেখানো বাটনে ক্লিক করা প্রতিবার VN-HAX চালু করলে একটি Key দরকার পড়বে Login এর জন্য।

এবার আপনাকে ব্রাউজার একটি লিংকে নিয়ে যাবে সেখানে গিয়ে Active Now বাটনে ক্লিক করুন।
উপরের মত আরেকটি লিংকে নিয়ে যাবে সেখান থেকে SKIP AD বাটনে ক্লিক করুন।
এবার আপনাকে আরেকটি লিংকে রিডাইরেক্ট করবে সেখানে গিয়ে Captcha Verify করতে হবে এবং Click Here To Continue বাটনে ক্লিক করবেন।

এবার সবশেষে Get Link বাটন পাবেন।

{বিঃদ্রঃ আপনার ব্রাউজারে পপ আপ উইন্ডো চালু হবে সেগুলো এরিয়ে যেতে হবে}


সবশেষে আপনি আপনার কাংক্ষিত Key পেয়ে যাবেন তা Copy করুন।


আপনার Copy করা key উপরের খালি বক্সে Paste করুন login বাটনে ক্লিক করুন।

এবার আপনার Hack চালু হয়ে যাবে 2nd Tab এ গিয়ে সবগুলো টিকমার্ক করে দিন আর আপনার পিসি যদি লো কনফিগ এর হয় তবে শুধু উপরের চারটিতে টিক মার্ক করে দিবেন।এটা হলো আপনার ESP.
এবার 3rd Tab এ চলে যান এবং উপরের মত সেটিংস করে নিন। এটা হলো আপনার Aimbot সেটিং।
এবার 4th Tab এ গিয়ে সবগুলো টিকমার্ক করে দিন। 4th Tab এর 1st সেটিং এ গিয়ে স্পিড আপনার মন মত নির্বাচন করুন কারন এই সেটিং এর মাধ্যমে আপনি শুয়ে শুয়ে বেশী স্পিডে দৌড়াতে পারবেন।
এবার 4th Tab এর ২য় সেটিংস এ গিয়ে কি কনফিগ করুন উপরের মত SHIFT এবং S নির্বাচন করুন ক্লিক করে।
4th Tab এর ৩য় সেটিংস এ গিয়ে স্পিড নির্বাচন করুন কারন এই সেটিংস আপনার গাড়ি আকাশে উড়তে সাহায্য করবে।যখন Space বাটনে ক্লিক করবেন তখন গাড়ি আকাশে উড়বে।

4th Tab এর ৪র্থ সেটিংস সেটিং এ গিয়ে কী নির্বাচন করুন ক্লিক করে SHIFT বাটনকে এই সেটিং আপনাকে Fast Landing করতে সাহায্য করবে।
4th Tab এর ৫ম সেটিংস এ গিয়ে 25 নির্বাচন করুন কারন এই সেটিং আপনার High Jump করার কাজে লাগবে।

উপরের সব কাজ হয়ে গেলে আপনি খেলার জন্য প্রস্তুত এবার আপনার কী-বোর্ড থেকে Insert বাটনে ক্লিক করুন তাহলে VN-Hax এর উইন্ডো Hide হয়ে যাবে আর আপনিও খেলতে পারবেন।

ইনশাআল্লাহ আগামী পোষ্ট Magic Bullet,Speed Hack, God View, Auto Scope Zoom ইত্যাদি নিয়ে হবে তাই DarkMagician.Xyz ভিজিট করতে ভুলবেন না কিন্তু।

তাহলে আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।
সৌজন্যেঃ Cyber Prince (TheDarkMagicianBD)

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি বর্তমান সময়ের সবথেকে আলোচিত গেমস PUBG Mobile এর Hack  নিয়ে আলোচনা করার জন্য তাহলে চলুন শুরু করা যাক।



আমাদের ভিতর অনেকেই আছেন যারা পিসি থেকে PUBG Mobile খেলেন Emulator  ব্যবহার করে তাদের জন্য আজকের এই পোষ্ট আর PUBG Mobile গেমস নিয়ে এটা আমার ২য় পোষ্ট আগের পোষ্টে ESP এবং Aimbot ব্যবহার কিভাবে করতে হবে তা নিয়ে আলোচনা করেছিলাম তাই যারা দেখেন নি তারা চাইলে নিচের লিংক থেকে দেখে আসতে পারেন।

আপনিও কি হতে চান PUBG Hacker তাহলে তবে এই পোষ্ট টি আপনার জন্য যেভাবে করতে হবে PUBG Hack

পোষ্ট শুরু করার আগে বলে নেই PUBG Mobile আমার খুব পছন্দের গেমস কিন্তু হ্যাকারদের অত্যাচারে খেলার মজাটাই অর্ধেক চলে গেছে তবে তাই বলে ছেড়ে দিলে কি হয় বলুন তাইতো মাথায় কুবুদ্ধি এলো সবাই যেহেতু কম বেশী হ্যাক ব্যবহার করছে তবে আমি করলে সমস্যা কি তাই আরম্ভ করলাম PUBG Mobile নিয়ে রিসার্চ করা বরাবর একমাস রিসার্চ করার পর অনেক কিছু জানতে পেরেছি আর সেই অভিজ্ঞতা আপনাদের সাথে শেয়ার করার জন্য চলে এলাম।

PUBG Mobile গেমসটিতে মূলত তিনধরনের খেলোয়ার থাকে যেমনঃ

1. Noob
2. Pro
3. Hacker

এখানে Noob বলতে নতুন বা তেমন ভালো বুঝেনা তাদের বুঝানো হয়।
আর Pro বলতে অভিজ্ঞ এবং পারদর্শীদের ধরা হয়।
সবশেষে থাকে Hacker যারা কিনা PUBG Mobile এর জন্য SuperMan এর Role পরিবেশন করে থাকে
আপনারা অনেকে তাদের হয়তো Cheat User ও বলে থাকেন।

এবার আসি কিছু ভুল ধারনা আছে আপনাদের মাঝে তা পরিস্কার করা যাক যেমন ধরুনঃ

যারা মোবাইল থেকে খেলবে তাদের সাথে মোবাইল দিয়ে খেলছে এমন সকল খেলোয়ার পড়বে।
আর যারা পিসি থেকে খেলেন তাদের সাথে যারা Emulator ব্যবহার করছে এমন সব খেলোয়ার পড়বে।
কিন্তু আপনি কি জানেন Emulator এ যারা খেলে থাকে তাদের ৬০% Hack ব্যবহার করে খেলে থাকে।

তবে এই বলে এটা ভেবে বসবেন না যে Mobile থেকে খেলতে গেলে হ্যাকার পাবেন না কারন Emulator Bypass করে পিসিতে বসে মোবাইল ব্যবহারকারীদের Chicken Dinner ছিনিয়ে নেওয়া সম্ভব।
তবে এখানে Bypass করলে রিস্ক বেশী Banned হয়ে যাওয়ার।

আর অনেকেই বলে যে পিসি থেকে খেলে বলে কেউ পারেনা তাদের সাথে এট সম্পূর্ন ভুল কারন তাদের সাথে শুধু পিসি ব্যবহারকারীদের খেলা পড়বে। আর আপনি যদি কোন পিসি ব্যবহারকারীদের সাথে Teammate হয়ে খেলে থাকেন তবেই শুধু আপনি Emulator ব্যবহারকারীদের মুখোমুখি হবেন।


আমি অনেক ধরনের Free এবং Paid Hack ব্যবহার করেছি জানার উদ্দেশ্যে কিন্তু যতই জেনেছি আগ্রহ আরো বেশী বাড়তে থাকে তাই গত একমাস আমার কোন পোষ্ট আপনারা পান নাই কারন আমি PUBG MOBILE খেলা নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম।

কিছু উল্লেখযোগ্য Hack রয়েছে যা কম বেশী অনেকেই ব্যবহার করে থাকে তবে আমি যা ব্যবহার করেছি তার মধ্যে যা ফ্রি ছিলো তা আমি সবার জন্য শেয়ার করবো আর যা Paid Version তা আপনি চাইলে আমার থেকে ক্রয় করতে পারবেন।

আগে বলে নেওয়া ভালো হবে যে ফ্রি ভার্সন গুলোতে যখন তখন Banned হয়ে যেতে পারে আপনার আইডি তাই Paid ভার্সন গুলো ব্যবহার করা Safe হবে তাছাড়াও Paid ভার্সন গুলোতে অনেক বেশী সুবিধা দিয়ে থাকে।



আসুন জেনে নেই হ্যাক গুলো সম্পর্কে সংখিপ্ত ভাবেঃ

ESP:
ESP ব্যবহার করলে আপনি আগে থেকে যেনে যেতে পারবেন আপনার Enemy Location তাছাড়াও জানতে পারবেন কোন ঘরে কি আছে Airdrop কোথায় আছে কিংবা যানবাহন গুলো কতদূরে আছে।

AIMBOT:
Aimbot এর কাজ হলো অটোমেটিক Enemy এর মাথায় গুলি করার জন্য কার্সর সেট হয়ে যাবে যার ফলে HeadShot বেশী আসবে।

FAST LANDING:
Fast Landing এর কাজ হলো Plane থেকে লাফ দিয়ে নির্দিষ্ট স্থান কোন প্রকার দেরী করা ছাড়াই মুহূর্তে মাটিতে নেমে যাওয়া।

Fast Run:
Fast Run আপনাকে দিবে আপনার নির্ধারিত দৌড়ের স্পিড অতিক্রম করে আরো বেশী স্পিডে দৌড়াদৌড়ি করার সুবিধা। ধরুন আপনি Knocked হয়ে গেলেন এবং আপনার Team একটু দূরে রয়েছে তখন আপনি চাইলে খুব তাড়াতাড়ি তাদের কাছে পৌছে যেতে পারবেন।

HIGH JUMP:
High Jump ফিচারের মাধ্যমে আপনি অনেক উচুতে লাফ দিয়ে ঊঠে যেতে পারবেন।

CAR FLY:
Car Fly এর মাধ্যমে আপনি চাইলে আপনার গাড়ি কিংবা মোটর সাইকেল আকাশে ঊড়াতে পারবেন।

SCOPE ZOOM:
এই ফিচারের মাধ্যমে আপনি কোন প্রকার Scope ছাড়াই 8x এর সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

CAR SPEED:
এই ফিচারে মাধ্যমে আপনি নির্দিষ্ট স্পিডের তুলনায় ২ গুন বেশী স্পিডে গাড়ি চালাতে পারবেন।

WALL HACK:
Wall Hack ব্যবহার করে Wall এর পিছনে থাকে Enemy কে মেরে দিতে পারবেন।

GOD VIEW:
এই ফিচারে মাধ্যমে আপনি অন্যদের তুলনায় ভিন্ন রকম Look ফিচার উপভোগ করতে পারবেন।

MAGIC BULLET:
এটা সবথেকে বিপদজনক হ্যাক কারন আপনি যেখানেই গুলি করেন না কেন তা গিয়ে সোজা আপনার Enemy এর গায়ে গিয়ে লাগবে।


তাহলে এই রইলো হ্যাক গুলো নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা আগামী পর্বে থাকছে কিভাবে আপনি এই হ্যাক গুলো ব্যবহার করবেন তার টিউটোরিয়াল নিয়ে আর সাথে ডাউনলোড লিংক তো রয়েছেই।


তাহলে আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।
সৌজন্যেঃ সাইবার প্রিন্স

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি আপনার পিসিকে Hosting বানিয়ে Wordpress সহ বিভিন্ন প্লাটফর্ম এর সাইট অফলাইনে তৈরী করার টিউটোরিয়াল নিয়ে তাহলে চলুন শুরু করা যাক।




আমরা অনেকেই শখের বশেই হোক অথবা প্রফেশনাল ভাবে ওয়েবসাইট তৈরী করার জন্য Hosting ব্যবহার করে থাকি আর তার জন্য আমাদের প্রয়োজন পড়ে ফ্রি Hosting Site খুজে বের করা আর নয়তো Hosting প্যাকেজ ক্রয় করে সাইট তৈরী করে জমা রাখা। তবে আপনি হয়তো জেনে থাকবেন যে অনলাইন Hosting এ একটি সাইট তৈরী করতে অনেকটা MB খরচ করতে হয় কাজ করার উদ্দেশ্যে তবে আপনি কিন্তু চাইলেই অফলাইনে সকল কাজ করে পরবর্তীতে সম্পূর্ন করা সাইটটিকে অন্য জায়গায় স্থানন্তর করে ফেলতে পারবেন এতে যেমন বেচে যাবে অনেক ডাটা খরচ তেমনি কাজ করতেও পাবেন অন্য রকম এক অভিজ্ঞতা আর তা নিয়েই আমার আজকের পোষ্ট আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।




আর এই অফলাইন এ কাজ করে হয়তো সেরে নিতে পারবেন আপনার শিক্ষনীয় কাজ গুলো চর্চা করা তবে তার আগে চলুন জেনে নেওয়া যাক যেসব প্লাটফর্মের কাজ গুলো করতে পারবেন।


Wordpress তো আছেই সাথে থাকছে Joomla, CMS Made Simple, Drupal, MediaWiki, PrestaShop, Moddle, OwnCloud

SugarCRM, Magento, Zurmo, TestLink, DokuWiki, osclass, phpBB,ProcessWire, SuiteCRM, EspoCRM, AbanteCart, MODX


এখানেই শেষ নয় আরো রয়েছে Mahara, Mautic, MyBB, OrangeHRM, OpenCart, TYPO3.


এছাড়াও আপনি পাবেন আলাদা কিছু ফিচার উপভোগ করতে আর তা হলোঃ (Themes & addons)
যেমন ধরুন Beetailer, Elegant Themes, Rocket Theme, SugarOutfitters
Template Monster, Theme Forest, WooThemes, WPMU.

উপরেতো গেলো সফটওয়্যার এর কিছু টুকিটাকি এবার আসছি মূল কাজের প্রসংগে আপনার এই অফলাইন Hosting ভিত্তিক কাজের জন্য প্রয়োজন পড়বে একটি কম্পিউটার সাথে একটি সফটওয়্যার আর আপনার কাজটি করার মন এবং মানসিকতা।

তো আশা করি আপনাদের পিসি রয়েছে আর সাথে কাজটি করার মন এবং মানসিকতা না হলে তো আর এই পোষ্ট টি পড়তেন না তাই নিচের Download অপশন থেকে ডাউনলোড করে নিন এবং টিউটোরিয়ালের সামনের দিকে আগাতে থাকুন।



Download হয়ে গেলে এবার ইন্সটল করার পালা তাই ইন্সটল করে ফেলুন।

যখন ইন্সটল করবেন তখন অবশ্যই MySQL,PHP,Perl এবং Phpmyadmin অপশন গুলোতে টিক মার্ক না থাকলে নিজ দায়িত্বে দিয়ে দিবেন আর বাকী গুলোতে টিক মার্ক না দিলেও চলবে।

Xampp Control Panel চালু হলে Apache এবং MySQL এর Start বাটনে ক্লিক করুন।
এবার আপনার ব্রাউজার থেকে নিচের লিংকে প্রবেশ করবেন
এরপর আপনার কাজ হবে নতুন একটি Database তৈরী করা।
New তে ক্লিক করুন এবং Database এর নাম লিখে Create বাটনে ক্লিক করা।

এবার আপনি যেই ফোল্ডার কিংবা ড্রাইভে Xampp Install করেছেন সেখানে যান তাহলে htcdocs নামে একটি Folder পাবেন তাতে প্রবেশ করুন।
এবার আপনি Dashboard নামে একটি ফোল্ডার পাবেন তাতে প্রবেশ করুন এবং যেসকল ফাইল থাকবে তা Delete করে দিন।
এবার নিচের লিংক থেকে Wordpress ডাউনলোড করে নিন।

Download হয়ে গেলে Zip ফাইলটি Dashboard Folder এ Extract করুন।

এবার আপনার ব্রাউজার থেকে http://localhost/dashboard/ লিংকে প্রবেশ করুন তাহলে উপরের মত আসবে let's Go তে ক্লিক করুন।
এবার প্রথম ঘরে আপনার তৈরী করা Database Name লিখুন তারপরের ঘরে User Name দিন root আর Password এর ঘর খালি করে Submit বাটনে ক্লিক করুন।
এবার আপনার সাইটের টাইটেল, ইউজার নেম, পাসওয়ার্ড এবং ইমেইল দিয়ে Install Wordpress বাটনে ক্লিক করুন।
তারপর লগিন করলে আপনার কাংক্ষিত WP Dashbord পেয়ে যাবেন তাহলে আরম্ভ করে দিন অফলাইনে সাইট বানানোর চর্চা আর ভালো লাগলে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু।

তাহলে আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।
সৌজন্যেঃ Cyber Prince