মিউজিক থেরাপিঃ সুরের মূর্ছনায় আরোগ্য লাভের নতুন উপায়

"মিউজিক থেরাপিঃ সুরের মূর্ছনায় আরোগ্য লাভের নতুন উপায়"


আমাদের মানবদেহে রোগ-শোক তো অহরহই লেগে থাকে। তাই রোগমুক্তির নানা কার্জকরী উপায় আবিস্কারে, প্রাচীনকাল থেকেই সন্ধান করে আসছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। এই সন্ধান গবেষণায় এবার নতুনভাবে যুক্ত হলো মিউজিক থেরাপি বা সুর-চিকিৎসা। তাহলে কি এই মিউজিক থেরাপি? 
সহজভাবে বলতে গেলে সুরের মুর্ছনার মাধ্যমে শরীরের রোগ বিনাশের ধারণাই হলো মিউজিক থেরাপির মূল কথা। মানবসভ্যতায় প্রাচীনকাল থেকেই মনুষ্য জাতির এই চরম বিকাশে সংগীত অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত হয়েছে, যদিওবা সংগীতের প্রথম জন্ম প্রকৃতিতেই। মানসিক চাপ হ্রাস, আধ্যাত্নিক চিন্তা বৃদ্ধি ও অন্যান্য অনেক সমস্যার সমাধানে সংগীত পালন করে আসছে এক অনবদ্য ভূমিকা। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, চিকিৎসা বিজ্ঞানের বহু জটিল সমস্যা সংগীত- সুরের মাধ্যমে সমাধান করা সম্ভব। যেমন মাথাব্যথা,জ্বর কিংবা ঘুমের ব্যাঘাত। অথবা ক্যানসারের মতো জটিল জীবন সংশয়ী অসুস্থতা কিংবা হাপানির মতো ক্রনিক ডিজিজ। 
এবার থেকে ডাক্তার বা ওষুধের দোকানে না গিয়ে বাড়িতে বিশেষজ্ঞের পরামর্শমতো প্রিয় গান কিংবা রাগপ্রধান গানের সিডি বা ক্যাসেট চালিয়ে একমনে শুনতে থাকুন। অবশ্য সে সময় বাইরের অন্য আওয়াজ যেন ভেতরে ঢুকতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখুন। কদিন পর লাল সাদা গোলাপি রঙয়ের ট্যাবলেট কিংবা ওষুধের শিশিগুলো ঘরের এক কোণে জমে উঠতে দেখলে অবাক হবে না যেন ...... আপনি ওষুধ ছাড়াই একা একা দিব্যি সুস্থ্য হয়ে উঠতে দেখবেন নিজেকে !
ইতোমধ্যে বিদেশে উল্লেখযোগ্য সফলতা অর্জন করায় এখন ভারতীয় উপমহাদেশেও এই থেরাপির প্রচলন শুরু হয়ে গিয়েছে, আর এ কাজে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছে ভারতীয় মার্গ সংগীত। মিজিক থেরাপির প্রচলনে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে নিমগ্ন গবেষণা, তত্ব-তালাশ। 
আসলে শব্দ থেকে সৃষ্ট কোন সুমধুর শ্রুতিশীল ধ্বনিই হলো সুর বা সংগীত, যা সময়ের সংগে সংগে বিভিন্ন ধ্বনির সমন্বয়ে পূর্ণ। প্রত্যেক ধ্বনির একটি নির্দিষ্ট কম্পন বিদ্যমান, যার বিস্তার ২৭.৫ থেকে ৪০০০ হার্টজের মধ্যে। এই কম্পন তরঙ্গাকারে মানুষের কানের মধ্য দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে। মানুষের স্নায়ুতন্ত্রের মাধ্যমে প্রবাহিত হয়ে মস্তিস্কের মধ্যভাগে গিয়ে পৌছায়, সেখান থেকে ছড়িয়ে পরে গোটা মস্তিষ্কে, এর পরই আলাদা আলাদা করে সেই সুরের বিভিন্ন উপাদানকে শনাক্ত করা যায়। যেমন বোঝা যায় কোনটা ফ্রিকুয়েন্সি, কোনটা রিদম, কোনটা মেলোডি, হারমনি ইত্যাদি।
অবশ্য কোন সুর বুঝতে হলে শুধু মস্তিস্ক থাকলে চলবে না, দরকার আরও কয়েকটি জিনিসের। যেমন স্মৃতি, শেখার ক্ষমতা ও আবেগ। আর সুরটা ঠিকঠাক বুঝতে বা ধরতে পারলে তা ক্রমশ প্রভাবিত করতে পারে হৃদস্পন্দন, রক্ত সঞ্চালন, মস্তিস্কের তরঙ্গ ও সারা শরীরের অন্তর্নিহিত গঠন প্রক্রিয়াকে। ফলে শরীরের অন্তঃস্থ বিভিন্ন ক্ষরণ ও নিঃসরণও প্রভাবিত হয়। 
পৃথিবীর বিভিন্ন সভ্যতা এই তত্বের সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছে। এমনকি প্রাচীন সভ্যতার ক্ষেত্রেও এই সত্যতা ছিলো অনস্বীকার্জ। প্রাচীন ভারত তো বটেই, আফ্রিকা,ইউরোপ থেকে শুরুকরে রেড ইন্ডিয়ান, অস্ট্রেলিয়ান, তিব্বতি, ইন্দোনেশিয়ান ইত্যাদি দেশের মানুষদের মধ্যেও সুরের গ্রহণযোগ্যতা, বিশেষত রোগ নিরাময়ের ক্ষেত্রে তা ছিলো অনস্বীকার্জ। শুনলে অবাক হতে হয় যে প্লেট এবং এরিস্টটলের এর লেখাতেও মিউজিক থেরাপির উল্লেখ পাওয়া যায়। 
১৯৪৪ সালে প্রথমবার মিউজিক থেরাপির ডিগ্রি কোর্স চালু হয়। ১৯৮৮ সালে গড়ে ওঠে এমেরিকান মিউজিক থেরাপি এসোসিয়েশন। এদের গবেষণায় প্রমাণিত হয় যে সুর ও সংগীত পারকিনসন, আলঝেইমার, হৃদরোগ, রক্তকাশি, স্বাসজনিত সমস্যা ইত্যাদি রোগ সারাতে অব্যর্থ। শরীর ও মন শান্ত রাখতে হালকা বাজনা অনেক ক্ষেত্রে উপকারী। যেমন বাঁশি, পিয়ানো, ভায়োলিন, সেতার ইত্যাদির সুর। 
মিউজিক থেরাপি যেকোনো বয়সের জন্য সমানভাবে উপকারী। শুধু রোগ নিরাময়ে নয়, এই থেরাপির মধ্য দিয়ে শারীরিক ও মানসিক চাপ কমানো, ঝরঝরে থাকা, স্মৃতিশক্তি বাড়ানো, যন্ত্রণা উপশম, শারীরিক সক্ষমতা বৃদ্ধি ইত্যাদি গড়ে তোলা যায়। 
আসলে মিউজিক থেরাপি হলো ওষুধের মতো, চিকিৎসা কাজে ব্যবহৃত। তবে যা তা সুর হলেই চলবে না, সমস্যা অনুযায়ী সঠিক সুর সঙ্গীতের নিদান। 
মিউজিক থেরাপির ক্ষেত্রে একটা ভ্রান্তি কাজ করে। তা হলো একোটি বিশেষ ধরনের সুর বা সঙ্গীতই সবসময় রোগ নিরাময়ে কাজ করে। এটা কিন্তু একেবারেই ঠিক নয়। যে কোনো ধরনের, যে কোনো ধারার সুর লক্ষ্য পূরণে সহায়ক হতে পারে, যদি রোগের সঙ্গে নিদানের রাজযোটক মিলে যায়। 
দিল্লীর এপোলো হসপিটালের কনসালট্যান্ট ড. সঞ্জয় চুঘ’র মতে, হতাশ বা জীবন সম্পর্কে উদাসীন অথবা বীতশ্রদ্ধ, এই সমস্ত শেণির মানুষ্কেই জীবনে ফিরিয়ে আনার কাজে যথেষ্ট উপকারী মিউজিক থেরাপি। মানসিক সমস্যার সমাধানে মিউজিক থেরাপি হলো অব্যর্থ দাওয়াই। 
ক্লিভল্যান্ডের প্রক্যাত সার্জন ড. ক্লিড ন্যাশ পরিস্কার বলেছেন, রোগীর উদ্বেগ দূর করতে সাহায্য করে মিউজিক। বহু ক্ষেত্রেই অপারেশনের চলার সময় হালকা মিউজিক বাজানো হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, এতে রোগীর ভালো বৈ খারাপ হয়নি কখনো। বিশেষ করে এনেসথেশিয়ার ফলে উদ্ভুত নানা প্রকার শারীরিক সমস্যা মেটাতে মিউজিকের ভূমিকা তুলনাহীন। ক্যান্সার রোগীদের কষ্টকর কেমোথেরাপি নেয়ার সময় পরীক্ষা করে দেখা গেছে, মিউজিক কষ্ট লাঘবে সাহায্য করে অনেকখানি।এমনকি উচ্চ রক্তচাপের ক্ষেত্রেও মিউজিক থেরাপি নির্ভর বিশেষ ধরনের প্রযুক্তি অত্যন্ত উপকারি। 
তাই এই যুগের চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা রোগমুক্তির উপায় হিসেবে এখন বাতলে দিচ্ছেন এই মিউজিক থেরাপিকেই। 
অর্থাৎ এ কথা এখন অনস্বীকার্জ যে, সুর আর সংগীতের আবহে থাকা একজন মানুষ যে কোনো অবস্থায় যেকোনো সময়ই এই মিউজিক থেরাপি নিয়ে সুস্থ থাকতে পারে।

সৌজন্যেঃ Ridwan Ur Rahman

Post a Comment

0 Comments

close