August 2019
চুল ও ত্বকের সৌন্দর্য বর্ধন ও যত্নের ক্ষেত্রে মেহেদী উৎকৃষ্ট মানের প্রসাধনী। এটি মেহেদী গাছের পাতা ও ডগা থেকে
উৎপন্ন বিশেষ এক ধরনের রঞ্জক পদাথ। মেহেদীতে লসােন,Lawsone (C10H6O3) নামক রঞ্জক পদাঘাতই মূলত
বণের জন্য দয়া। লসোন শরীরের যে কোনাে অংশের চামড়া, নখ ও চুলের বহিস্তরের প্রােটিনগুলােকে সংযুক্ত করে। এটি
সংযোজন (Addition) বিক্রিয়ার মাধ্যমে ত্বক, নখ ও চুলে বর্তমান প্রােটিনের সাথে বিক্রিয়া করে উজ্জ্বল বর্ণের ইমালসন তৈরি করে। এটা ত্বকের উপর আবরণ সৃষ্টি করে।

উপকরণ : মেহেদী তৈরির জন্য যেসব উপকরণের প্রয়ােজন পড়ে তা হলাে হেনা পাউডার, কফি পাউডার বা এর পরিবর্তে
চা পাতা, লেবুর রস, এসেনশিয়াল অয়েল, মেথি গুড়া ও চিনি।
প্রস্তুতি: একটি প্লাস্টিক বা সিরামিকের বাটিতে 20 g পরিষ্কার হেনা পাউডার, ১/৪ কাপ লেবুর রস, এক টেবিল চামচ চিনি
ও ,১/২ চামচ মেথিগুঁড়া নিয়ে ভালােভাবে মেশাও। এক চামচ কফি পাউডার দুই কাপ পানিতে মিশিয়ে ভালােভাবে মিশিয়ে
নাও। এক্ষেত্রে কফির পরিবর্তে চা ব্যবহার করা যায়। এটি রঙের স্থায়িত্ব বৃদ্ধি ও সুগন্ধি হিসেবে কাজ করে। এ দ্রবণকে।
মিশ্রণের মধ্যে নিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে। এমন ভাবে নাড়াতে হবে যেন কোনােরূপ দানাদার ভাব না আসে।
প্লাস্টিকের র‍্য্যাপপ দ্বারা ঢেকে 6 - 10 ঘণ্টা একটু গরম স্থানে রাখ। এ অবস্থায় মিশ্রণ বেশি পাতলা হলে পরিমাণমতাে
অতিরিক্ত হেনা পাউডার মিশিয়ে নেওয়া যেতে পারে। এ পর্যায়ে পরিমাণমতো এসেনসিয়াল ওয়েল যােগ করে পেস্টকে
টিউবের মধ্যে ভরে সংরক্ষণ করা হয়।
লেখা-
Rayhan Hosem Refat


ডোপামিন ♥♥♥♥

"Love is nothing But some chemical reaction in our brain which control our  heart rate,  respiration rate  and  body's blood pressure and Secretion of Some hormones of our body... "

 এটা আমার কথা,  যা আমার মনে হয় ঠিক! 

এখন কথা হল হরমোন রিলিজ হল আর ভালোবাসা হয়ে গেল ব্যাপার টা এত্তো সোজা?? 
মোটেই না। 

আমাদের মস্তিষ্কের হিপোথ্যালামাস এ অনেক ধরনের হরমোন রিলিজ হয় যা আমাদের রিলিজ হয় আমাদের পার্টিকুলার যেকোনো কাজ এর পর আমরা যে অনুভূতি পাই । 

আর এই হরমোন রিলিজ হবার সাথে স্মৃতি শক্তির বা নিউরন এর একটা কানেকশন আছে,  মানুষ টিভিতে বিভিন্ন গান দেখে বা মুভি দেখে বা জীবনের বিভিন্ন স্টেজ থেকে অভিজ্ঞতাটা অর্জন করে এবং মজা পেতে থাকে৷ 

আচ্ছা মজা পেল বা কান্না পেল এর সাথে প্রেম এর সম্পর্ক কী?

আছে এখানেই আসল টুইস্ট। 

আমাদের নিউরন গুলোর মধ্যে দিয়ে বিভিন্ন ইলেক্ট্রো ক্যামিকাল ডেটা সমূহ বিভিন্ন কাজের জন্য প্যাটার্ন আকারে যায়। 

আর এটাকে বলে সর্ট টার্ম ম্যামরি,  আর যখন বার বার,  বার বার,  একই পথে নিউরন যায় তখন সেটা লং-টার্ম ম্যামরীতে কনভার্ট হয়৷ 

এখন ধরে নিন আমি কাউকে দেখলাম রাস্তায়,  সে ভীষন রকম সুন্দর,  আমি আমার ফ্রেন্ড কে বললাম দেখ মামা মেয়ে টা কি সুন্দর! 

সাথে সাথে  আমার হার্ট রেট উপরে,  রেস্পিরেশন রেট উপরে,  আর এগুলো হয় আমাদের মস্তিষ্কের হিপোথ্যালামাস এ একটা হরমন রিলিজ হয় নাম তার ডোপামিন ♥।

আচ্ছা এখন এটা কি প্রেম??  না এটা একটা ভালো লাগা,  আর হর্মন রিলিজ হবার প্রশান্তি। 

এখন ব্রেইন কিন্তু মনে রেখেছে কোন প্যাটার্ন এ নিউরনের মধ্যে দিয়ে ইলেকট্রো ক্যামিক্যাল পরিচালিত হলে সে এই অনুভূতি পায়। 

এখন ব্রেইন তো হারামি সে বার বার এই অনুভূতি পেতে চায়,  তো সে সে সেই অনুযায়ী মানুষ কে পাঠায় ঐ রাস্তায় যেখানে সেই  মেয়ে আছে 😅।

 কীভাবে পাঠায়? সেই লং-টার্ম ম্যামরী থেকে। আবার মানুষ যায় আবার সেই বুকের মধ্যে ধুক ধুক, ধুক ধুক 😂😂😂। আবার হর্মন রিলিজ আবার সেই অনুভূতি! ♥♥

আর প্রেম হচ্ছে এর সমন্নিত রূপ,  আমাদের,  সুখের, দুঃখ এর অবাক হবার,  কান্নার,  হাসির,  সেক্সুয়াল সেনসিটিভিটি বা প্লেজার, সব কিছুর জন্য দ্বায়ী হিপোথ্যালামাস  এ রিলিজ হতে থাকা ডোপামিন । আবার নেশা যারা করে তাদের মস্তিষ্কেও এই ডোপামিন ই রিলিজ হয়৷ আসলে এটা আমাদের ইমোশন নিয়ন্ত্রণ করে! 

এখন এমন অনেক অনূভুতি একসাথে জড়ো হয়,  যার সাথে সেগুলোর স্মৃতি জড়ো হয়৷ এই যে মস্তিষ্কের প্রশান্তি লাভের আশা সেটার জন্য সে একই কাজ বার বার করতে চায়। আর বার বার করতে গেলে তার তো বাইরের জগৎ এও একটা ইফেক্ট পড়ে তাই না!!

যেমন মেয়ে দেখে ভালো লাগলে বার বার ঔ রাস্তায় যাবে ছেলেটা। আর এটা সবার চোখে পড়বে,  আর মেয়েটার ও যদি ছেলেটাকে দেখে তার একটিভিটি দেখে সেইম রিএকশন হয় সেও ছেলেটার সাথে দেখা করতে চাইবে৷ 

যখন দুজন থাকবে তারা সাথে তাদের মস্তিষ্কের হিপোথ্যালামাস  এ রিলিজ হবে ডোপামিন সহ অনেক হর্মন ।  আর নিউরনের প্যাটার্ন এর দ্বারা বানানো স্মৃতি শক্তি দ্বারা তারা এই অনুভূতি গুলো বার বার পেতে চায় ! 

 সে বাস্তব জীবনেও ওই কাজ করতে যায় যার সমন্বিত রূপ হচ্ছে এই প্রেম বা ভালোবাসা। 

এখন কেউ ব্রেকাপ করলে কষ্ট পায় কিন্তু এজন্য না যে অন্য জন চলে যাচ্ছে,  কষ্ট পায় এজন্য ওই যে প্রশান্তির অনুভূতি  সেটা চলে যাচ্ছে,  আর আমাদের মস্তিষ্ক তো টেপ রেকোর্ডারের মত স্মৃতি প্লেব্যাক করতে পছন্দ করে! 

বার বার মস্তিষ্ক  যখন স্মৃতি প্লে ব্যাক করে যা আমাদের প্রশান্তি পাবার আকাঙ্ক্ষা থেকে সৃষ্টি হয় কষ্ট পাবার নতুন অনুভূতি! 

আবার আমরা বলি সময় গেলে সব ঠিক হয়ে যাবে,  আসলে সময় সব ঠিক করে এমন না,  ব্যাপার হল এই যে মস্তিষ্কের নিউরনের প্যাটার্ন গুলো হয় সে ভুলে যায়,  অথবা তার জায়গায় চালিত হয় নতুন প্যাটার্ন,  নতুন অনুভূতি বা এক কথায় নতুন কোনো মানুষ! 

এই যে ছবি দেখছেন এখানে দেখুন এক মিনিট এর মধ্যে heart rate এর variation এগুলো গতবছর জুলাই মাসের ১৮ তারিখ রাতের।

 তখন কিন্তু এক জায়গায় বসে ছিলাম তাও আমার হলের বেঞ্চে, আর আমার সাথে এমন কিছু ঘটেছিল যার ফলে আমার মস্তিষ্ক আমাকে কিছু স্মৃতি প্লেব্যাক  করে দেখাচ্ছিল এই যা 
 
এসব মেজার করেছিল আমার ব্যান্ড এবনরমাল একটিভিটি এজন্য  ।। 

নরমাল সময় যা থাকে ৮০+-। 

আজব বিষয় গুলো। আজব৷ 

যারা মানুষের স্মৃতি শক্তির ব্যাপার টা বুঝতে পারছেন না বলবেন ওটার উপর আলাদা আর্টিকেল আছে! 

 Credit: #AbhiIDT


PUBG খেলতেছিলাম মনের আনন্দে কিন্তু কোন এক হারামী আইসা পিছন থেকে গুলি কইরা চিকেন ডিনার টা লইয়া গেলো !
তবে এটা বলার জন্য তো স্ট্যাটাস দেওয়ার প্রয়োজন নাই এটা আপনিও বুঝেন নতুন করে ম্যাচ শুরু করলাম চারজন পড়লো বাংলাদেশী যাই হোক আমি তো খুশী তো আপনি ভাবতেছেন সমস্যাটা কোথায় তাহলে ওকে বলতেছি।
চারজনের ভিতর একটা মেয়ে আমি এবং জহির নামে একজন এবং অন্যটা হচ্ছে মেয়েটার বয় ফ্রেন্ড। ওরা তিনজন একসাথের আমি বেচারা ওদের বকবকানী শুনতে শুনতে বেসামাল কিন্তু কিছুই করার নাই।
অবশেষে মেয়েটা বলে উঠলো আবে হালায় চাইর নাম্বারটা কেঠায়।





আমিও মাইক্রোফোন চালু করে বলে বসলাম ক্যান চার নাম্বারে আবার কি করলো যাই হোক সবার সাথে পরিচয় পালা শেষ এবার লুট এবং খুন করার জন্য সবাই প্রস্তুত কিন্তু আসলে আমার খেয়াল নাই যে এক নাম্বার টা মেয়েটা ছিলো আমি চার তো কাকতালীয় ভাবে আমি যেখানে যাচ্ছিলাম ১ এর সাথেই ঘুরতেছিলাম অজান্তে আর এটা নিয়ে বয় ফ্রেন্ড আর গার্ল ফ্রেন্ড জানু বাদ দিয়ে ঝগড়া লেগে গেলো ৪ এর সাথে তোমার এত কি ১ নম্বর খালি ফ্লাটে যাও।
চিন্তা করলাম শালার ভালোবাসা কতটা মজবুত একটা গিট্টু লাগাইয়া দেখি।
আমি বললাম ফ্লাটে গেছিতো লুট করতে আর কিছু তো করি নাই উনি শুধু AKM টা চাইলো তারে সেটা দিলাম।
১ এর বয়ফ্রেন্ড বলে উঠলো হ ফাকা রুমে কি করে আমরা ছোট কাল থেকেই বুঝি। মেয়েটা রেগে গিয়ে বললো এই তোমার সমস্যাটা কি গেমস এই তো আর তোমার হিংসা হইলে তুমি আমার লগে থাকো।
আমি মাঝ খান থেকে প্যাচ লাগিয়ে দিলাম এই বলে আপনার কি ফ্রেন্ড বাবাগো বাব ভাবা যায় উনি মনে হয় মেয়েদের সম্মান দিতে জানে না নয়তো আপনার আচল ধরে ধরে সব ফ্লাট ঘুরে বেড়াতো।
ছেলেটা বলে উঠলো ভাই দেখেন আমাগো ব্যাপারে নাক গলাবেন ন্য আমিও বলে বসলাম ওকে নাক গলাবোনা কিন্তু কথা ঠিকই বলবো।

এবার হ্যাকারদের মত সব দিক নির্দেশনা দিতে লাগলাম মেয়েটাকে সে পুরাই ইম্প্রেস হইয়া আমার লগে আড্ডা জুড়ে দিলো।
আমিও তার সাথে গপ্প গুজব করছিলাম এটা দেখে ছেলেটা মেয়েটার সাথে ব্রেক আপ করে ফেলা নিয়ে কথা শুরু করলো।
এতক্ষন পরে ৩ নম্বরে তাদের শান্তনা দিতে লাগলো।
তো আমি চিন্তা করলাম আমার জন্য বেচারা রা ব্রেক আপ করতাছে তবে মিলাইয়া দেই।




একটা গ্রেনেড নিয়া মেয়েটাকে লক্ষ করে মারলাম এবং বললাম Enemy আইসা পড়ছে ওরা ঝগড়া করায় ব্যস্ত ছিলো তাই কে মারছে লক্ষ করে নাই।
এবার Revive করার পালা আমি ৩ নম্বর কে বললাম ভাই আপনি যাইয়েন যার বঊ হে দেখুক গা আমগো কি তবে ছেলেটি যেতে নারাজ তখন মেয়েটা বললো জান প্লিজ এইবার অন্তত আমাকে বাচাও।
যাই হোক দুইজনের মিলন দেখিয়া আত্মহারা হয়ে গিয়ে ভুলে তাদের মাঝখানে আরেকটা গ্রেনেড ছুড়ে মারলাম কিন্তু দেরী হয়ে গিয়েছে ততক্ষনে লাভ বার্ড গুলো উপরে চলে গিয়েছে। এই দেখে ৩ নম্বর বললো ভাই ভালো কাজ করছেন বেশী পাকাইতেছিল।
এর মধ্যে Enemy আইসা আমাদের দুজনকে Magic Bullet গিফট করে বাসায় পাঠিয়ে দিলো।
যাই হোক চারজনে আবার Squad করবো বলে জয়েন দিলাম কিন্তু তারা আমাকে রিজেক্ট কইরা দিলো।
যাই হোক অবশেষে বুঝলাম বোমা ফাটাইয়া ভুল করি নাই দুজনের মিল হয়ে গেছে।

মনে রাখবেন যে অল্পতেই সন্দেহ করে তাকে পরিহার করুন তাহলে সুখী হবেন।






হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ নিয়ে হাজির হয়েছি আপনার কম্পিউটারের জন্য সেরা মানের একটি রেসিং গেমস যার নাম Need For Speed Most Wanted এর Highly Compressed Download লিংক এবং সাথে তার রিভিউ নিয়ে তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

শুরু করার আগে কিছু কথা জেনে নিন, যদিও গেমস টি অনেক আগে প্রকাশ করা হয়েছে তবে আমার কাছে অনেক ভালো লাগে তাই আপনাদের সাথে শেয়ার করার জন্য এসেছি হয়তো আপনাদের মধ্যে অনেকেই অনেকবার গেম ওভার করেছেন তারা অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন কেমন লেগেছে গেমস টি এতে যারা এখনো খেলে নাই তারা অনুপ্রানিত হবে তাই চাইলে আপনার সংক্ষিপ্ত রিভিউ কমেন্টে দিতে পারেন তাহলে মূল প্রসংগে ফিরে যাচ্ছি।




NFS Most Wanted Review:

NFS Most Wanted মুলত একটি Open World রেসিং গেমস যা কিনা Need For Spees গেমস সিরিজের নবম পর্ব। গেমস টি Developed করেছে EA Canada এবং প্রকাশনায় ছিলো Electronic Arts. NFS Most Wanted প্রথম প্রকাশিত করা হয়েছিলো নভেম্বর মাসের ১১ তারিখ ২০০৫ ইং সালে এবং যে সকল প্লাটফর্মের জন্য প্রকাশ করা হয়েছিলো তা হলো PlayStation 2, Xbox, GameCube, Nintendo DS, Microsoft Windows, Game Boy Advance এবং Xbox 360. আবার তারা একই বছরে Most Wanted 5-1-0 Edition পুনরায় প্রকাশ করে PlayStation Portable প্লাটফর্মের জন্য। 

প্রথমত আপনি গেমস টি Single অথবা Multiplayer Mode ব্যবহার করে খেলতে পারবেন। এখানে মজার একটি রেসিং ফিচার হলো  Police Pursuit মানে পুলিশের  সাথে টক্কর দিতে হবে তাছাড়াও আপনি পাবেন Career Mode থেকে নতুন একটি রেসিং ক্যারিয়ার শুরু করতে যেখানে আপনাকে হারাতে হবে Blacklist এর শীর্ষে থাকা রেসারদের আর রেস গুলোতে Win হতে পারলেই সামনে আগাতে থাকবেন। প্রতি একজন Blacklist রেসারদের হারাতে পারলে পেতে পারেন অনেক উপহার।

আপনাকে সামনে আগানোর পাশাপাশি আপনার গাড়ীকে আপডেট করা, রঙ করা, বডি পার্ট উন্নত করা কিংবা Nitro আপডেট করা ইত্যাদি। এখানে আপনি আপনার গাড়ি কে নিজের মত কাস্টমাইজ করতে পারবেন। আর টাকা জমিয়ে কিনতে পারবেন গাড়ির দোকান থেকে ঝাক্কাস সকল গাড়ি গুলো। তবে কথা আছে আপনি Blacklist Racer দের যত হারাতে পারবেন ঠিক ততোটাই সুপার গাড়ী গুলো আনলক হবে।


আরো রয়েছে Quick Race সাথে Challenge Series আর সাথে Multiplayer Mode তো বোনাস হিসাবে রয়েছে।





NFS Most Wanted Minimum Requirements:

CPU: Pentium 4 or Athlon XP
CPU SPEED: 1.4 GHz
RAM: 256 MB
OS: Windows 2000/XP
VIDEO CARD: 32 MB DirectX 9.0c compatible 3D video card 
(NVIDIA GeForce2 MX+ / ATI Radeon 7500+ / Intel 915+)
TOTAL VIDEO RAM: 32 MB
3D: Yes
HARDWARE T&L: Yes
DIRECTX VERSION: DirectX 9.0c (included on disk)
SOUND CARD: Yes
FREE DISK SPACE: 3 GB





NFS Most Wanted Recommended Requirements:


CPU: Pentium 4 or Athlon XP

CPU SPEED: 2.2 GHz
RAM: 512 MB
OS: Windows 2000/XP
VIDEO CARD: 64 MB 3D video card (NVIDIA GeForce 6200+ / ATI Radeon 9800+ )
TOTAL VIDEO RAM: 64 MB
3D: Yes
HARDWARE T&L: Yes
PIXEL SHADER: 2.0
DIRECTX VERSION: DirectX 9.0c (included on disk)
SOUND CARD: Yes
FREE DISK SPACE: 3 GB


উপরের কনফিগ দেখে নতুনরা ভেবে নিওনা যে গ্রাফিক্স ভালো হবে না সত্যি কথা বলতে গ্রাফিক্সটা অসাধারন এই NFS Most Wanted গেমস টির।
আমি তো সেই ২০০৫ থেকে খেলে আসছি ভালোই লাগে অনেকবার গেম ওভার করেছি গেমসটি মডিফাই করেছি ডিলেট করেছি আবার পুনরায় ইন্সটল করে খেলেছি আমার মতামত গেমসটি অসাধারন একটি রেসিং গেমস।
তবে আপনার লিস্টে যদি আরো ভালো কোন গেমস থাকে তবে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন না খেলে থাকলে খেলে দেখবো।

NFS Most Wanted ScreenShort:











NFS Most Wanted Download:

এবার আসি ডাউনলোড লিংক প্রসংগে যেহেতু কম্প্রেস করা তাই আপনি পাচ্ছেন 357MB সাইজে এটা আমার টেস্ট করা 100% Working তাই ডাউনলোড করে নিতে পারেন আর আমি Repack করে আপলোড করে দিয়েছি তাই ডাউনলোড করা আর না করা আপনার ব্যাপার।

ডাউনলোড লিংক যদিও গুগল ড্রাইভের তবে এর লিমিটেশন কন্ট্রোল করার জন্য শর্ট লিংক ব্যবহার করা হয়েছে যার কারনে আপনাদের সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখিত।





Download Link


Password: darkmagician.xyz



তাহলে আপনারা উপভোগ করুন আপনার গেমিং সময়টাকে রেসিং এর মাধ্যমে আর আমি আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে ।

সৌজন্যেঃ Cyber Prince

আমার Facebook Fan Page এ লাইক কমেন্ট করে রাখতে পারেন আপডেট গুলো সবার আগে পেতে।

অথবা চাইলে আমার Youtube Channel Subscribe করতে পারেন টেক ভিত্তিক Video আপডেট জানতে।


হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি উইন্ডোজ কম্পিউটার কে Transparent বানানোর ছোট্ট একটি কৌশল উপস্থাপনা করার জন্য তাহলে চলুন শুরু করা যাক।


আমরা অধিকাংশ কম্পিউটার ব্যবহারকারী পিসি নিজের কিছু কাজ কিংবা ব্রাউজিং অথবা গেম খেলা সহ নানা কাজে ব্যবহার করে থাকি তাই না। কিন্তু অল্প সংখ্যক অপারেটর আছে যারা কিনা তাদের কম্পিউটার কে সবার থেকে আলাদা রুপে রাখতে চায়। তবে আপনিও যদি চান আপনার পিসি কে সবার থেকে ভিন্ন একটি রুপ দিতে তবেই চলে যান Transparent করার মূল প্রসংগে।

আপনার কাজটি করতে কিছু জিনিসের দরকার পড়বে চিন্তার কিছু নেই তা পোষ্টের শেষে লিংক সংযুক্ত করে দেওয়া হয়েছে।


ডাউনলোড হয়ে গেলে ফাইল টি Rar থেকে Extract করুন। Extract হয়ে গেলে নিচের মত কিছু দেখতে পাবেন আপনার সদ্য Extract করা Folder টি তে।
এখন আপনার কাজ হবে Universal Patcher Application টি চালু করা তবে অবশ্যই মনে রাখবেন যারা 64bit ব্যবহার করেন তারা শুধু 64Bit নির্বাচন করুন আর যারা কিনা 32Bit ব্যবহার করেন তারা 32Bit এর Universal Patcher টি Open করুন।
Universal Patcher এ প্রবেশ করলে নিচের ছবির মত আসবে আপনার কাজ হবে Patch বাটন গুলো তে ক্লিক করা এবং Success ম্যাসেজে ok  বাটনে ক্লিক করা।

যদি আপনি উপরের কাজ শেষ করে থাকেন তবে কম্পিউটার Restart চাইবে কিন্তু No দিয়ে এড়িয়ে যান।

এবার আপনার কাজ হবে Chameleon এবং W7GLASS ফোল্ডারে যা রয়েছে তা সিস্টেমে কপি পেস্ট করা তার জন্য নিচের ছবি টি দেখুন।

প্রথমে যে ড্রাইভে Windows Install করেছেন সেই Drive এ চলে যান এরপর Windows ফোল্ডারে প্রবেশ করুন।
Windows ফোল্ডার থেকে Resources ফোল্ডারে চলে যান এবং Resource ফোল্ডার থেকে Theme ফোল্ডারে প্রবেশ করুন।
এবার Chameleon এবং W7GLASS ফোল্ডারে যা রয়েছে তা এই Theme Folder এ Paste করুন।

এবার আসি শেষের ধাপে আপনি এবার BlackGlassEnhanced  এবং Full Glass এই দুটি Application কে Copy করুন।
এবার Windows Start Menu তে ক্লিক করে All Programs থেকে Startup খুজে বের করুন এবং Right Click করে Explore এ প্রবেশ করুন।
এবার এখানে আপনার কপি করা  BlackGlassEnhanced  এবং Full Glass এই দুটি Application কে Paste করে দিন। ভাববেন না কাজ এখানেই শেষ পিকচার আবিভি বাকী হে মেরি দোস্ত।
এবার আপনার কম্পিউটার কে Restart দিন। এবার Restart হয়ে গেলে নিচের মত করে নিন।

এবার আপনার Desktop থেকে Right Click করে Personalized এ চলে যান এবং Chameleon অথবা W7GLASS Theme নির্বাচন করুন।

যারা উপরের উপস্থাপনা দেখেও আগা মাথা খুজে পাচ্ছেন না তারা চাইলে ভিডিও টিউটোরিয়াল টি একবার দেখে নিতে পারেন।


ডাউনলোড করতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।
Download Link

ব্যস হয়ে গেলো Transparent Looking Windows আপনার শখের কম্পিউটারের জন্য।
জানিনা আপনাদের ভালো লেগেছে কিনা যদি বিন্দু মাত্র ভালো লেগে থাকে তবে লাইক কমেন্ট করে আপনারা যে পাশে আছেন তা জানাতে ভুলবেন না কিন্তু।

তাহলে আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।
সৌজন্যেঃ সাইবার প্রিন্স

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি 
TemplateToaster Professional Edition নিয়ে যা দিয়ে বানাতে পারবেন ওয়েবসাইটের ডিজাইন কোন প্রকার কোডিং না জানা থাকলেও খুব সহজেই তাহলে চলুন শুরু করা যাক আজকের সফটওয়্যার রিভিউ।



ওয়েবসাইট এর মূল আকর্ষন হচ্ছে তার ডিজাইন আপনারা তা অবশ্যই জানেন কিন্তু সেই ডিজাইন কি কখনো কোডিং না জেনে বানানোর কথা চিন্তা করেছেন। হয়তো অনেকে করেন নি  কারন ইন্টারনেট এ কানেক্ট হয়ে গুগল মামাকে সার্চ করলে পাওয়া যাবে অনেক পেইড ভার্সন ফ্রি তে আর তা নিয়েই হয়তো অনেকে সন্তুষ্ট কিন্তু আপনার যদি ইচ্ছা জাগে যে নিজেই একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন করবেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে HTML, CSS, JAVASCRIPT ছাড়াও JQUERY,  BOOTSTRAP, কিংবা PHP ইত্যাদি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ গুলো শিখতে হবে তাই দমে গেছেন তবে এবার কোডিং না জেনেই নিজের Theme কিংবা Template নিজেই তৈরী করে ফেলুন শুধুমাত্র আপনার অপারেটিং দক্ষতা দিয়ে অফলাইনে তাও আবার লাইভ প্রিভিউ সহকারে।

TemplateToaster Review:




মাত্র কিছু স্টেপ এর মাধ্যমে তৈরী করে ফেলতে পারবেন আপনার Templates কিংবা Theme. প্রথমে সফটওয়্যার টি ডাউনলোড এবং ইন্সটল করতে হবে তারপর আপনার Design কে Customize করতে হবে এবং সবশেষে Export করে আপনার সাইটে Upload করতে হবে। হয়তো ভাবছেন কোন প্লাটফর্ম এর জন্য বানানো যাবে তবে আসুন আরো বিস্তারিত জানা যাক।


Wordpress Template, Joomla Template, Magento Theme, Drupal Theme



PrestaShop Theme, WooCommerce Theme, HTML Website, VirtueMart Template

 সাথে রয়েছে আমার পছন্দের Blogger Template, Opencart Theme, Bootstrap Website আশা করি আপনার প্লাটফর্মের নামটাও এখানে আছে।
 আমার মতে এটা Best একটি সফটওয়্যার কারন হিসাবে বলবো কোডিং এর ঝামেলা নেই তাই আপনার ও একবার যাচাই করে দেখা উচিৎ।
যেহেতু এটা কম্পিউটার সফটওয়্যার তাই আপনি সুবিধা পাবেন লাইভ কাস্টমাইজ করার সাথে লাইভ প্রভিউ তো রয়েছেই।

 আমি উপরে উল্লেখ করেছি প্লাটফর্মের নামগুলো তাই এককথায় বলা যেতে পারে যে কোন প্লাটফর্মের জন্য আপনি Theme কিংবা Templates তৈরী করতে পারবেন।
আপনি ই-কমার্স সাইট বানাতে চাইলে অবশ্যই ব্যবহার করা উচিৎ কারন সবার ডিজাইন আপনার পছন্দ নাও হতে পারে তাই নিজের ডিজাইন নিজেই তৈরী করে নিতে পারবেন তাহলে বেঁচে যাবেন বাড়তি অনেকগুলো টাকা খরচ করা থেকে।

 আর এর আর একটি আকর্ষনীয় ফিচার হলো এই সফটওয়্যার Tab, Mobile, Desktop যে কোন ভার্সনের Responsive ডিজাইন বানানো সম্ভব আর সাথে লাইভ ভিউ করার ফিচার তো থাকছেই।
 আপনি চাইলে Customize করার জন্য Drag and Drop ব্যবহার করতে পারেন যা আপনার কাজ আরো সহজ করে দিবে।

আপনার তৈরী করা Theme আপনি যেকোন Hosting এ আপলোড করতে পারবেন তাই ডাউনলোড করবেন কিনা ভাবতে থাকুন কারন সাইজেও ছোট।
 আপনার সুবিধার্থে সফটওয়্যার টিতে কিছু Demo ডিজাইন দেওয়া রয়েছে আপনি কিন্তু চাইলে খুব সহজে সেই ডিজাইন কে আপনার মনের মত করে সাজিয়ে গুছিয়ে তৈরি করে ফেলতে পারবেন আপনার ইউনিক Theme.
 কেন ব্যবহার করবেন যদি ভেবে থাকেন তবে বলে নেওয়া ভালো হবে যে 1Million ব্যবহারকারী তাদের কাজে সফল হয়েছে এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে তবে কেউ যদি ছাদে থেকে লাফ দেয় আপনার ও দিতে হবে এমন কোন কথা ভাবলে বোকার দেশে আছেন নিজে যাচাই করে দেখবেন। আর চাইলে আপনিও Theme বা Template বানিয়ে বিক্রি করতে পারবেন এতে হয়তো পেতে পারেন ডেভেলপার হওয়ার ফায়দা।

TemplateToaster Download Link:




আপনি চাইলে সফটওয়্যার টি ক্রয় করে চালাতে পারেন তবে আপনি যদি ফ্রিতে পেতে চান সাথে ১০০% ওয়ার্কিং তবে অবশ্যই নিচের লিংক থেকে ডাউনলোড করতে হবে।


যেভাবে প্রিমিয়াম ভার্সন করবেন না জানলে ভিডিও টি এক নজরে দেখে নিতে পারেন।



তাহলে আপনারা উপভোগ করুন আর আমি আজকের মত বিদায় দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে।

আমি Refat আবার হাজির আপনাদের সাথে আরনিং অ্যাপ নিয়ে।যা দিয়ে আপনি সহজেই টাকা আয় করে তা বিকাশ,বিটকয়েন,রিচাজ এ নিতে পারবেন।

আসলে মূলত পোস্ট টা করা আমার মতো তাদের জন্য যারা অল্প সময় ফেইসবুকে নষ্ট করার বদলে সহজ কাজ করে কিছু টাকা পকেটে নিতে পারেন।
আসুন কাজের একটা ধারণা দিই।৩টি অ্যাপ সেয়ার করব।প্রতি অ্যাপ এ প্রতিদিন ৫ টি ক্লিক করতে পারেন।১ ক্লিকে ১.৫ টাকা।তাহলে প্রতিদিন পাচ্ছেন ৫*৩=১৫ ক্লিক এ পাচ্ছেন ১৫*১.৫=২২.৫ টাকা।যা আসলেই মাত্র ২০ মিনিটে কম্পলিট করতে পারবেন।অ্যাপ গুলোর কাজের সিস্টেম একদম সেইম কারন অ্যাপগুলো একজন এডমিনের।আর সে প্রতিদিন পেমেন্ট করছে।যার প্রুফ এখনই স্ক্রল ডাউন করে দেখে আসুন।পরে বাকি পোস্ট টা পড়ুন।এতে আপনার সন্দেহ দূর হবে।

অ্যাপ গুলোর লিংকঃ

১ম অ্যাপ

২য় অ্যাপ

৩য় অ্যাপ


তাহলে চলুন কাজটা বুজিয়ে দিই।

আপ্পগুলো চালু করলে এমন রেজিস্ট্রেশন ফরম আসবে।সেখানে যা যা চাচ্ছে তা দিবেন এবং সবগুলো অ্যাপ এ রেফার কোডঃ 01987295742
বলে রাখা ভালো রেফার ছাড়া অ্যাপ সাইন আপ করা সম্ভব না।

চলেন কাজের নিয়মে আসি।

সাইন আপ করার পর এমন পেইজ আসবে।এই পেইজে Earn Money তে ক্লিক করবেন।
এরপর এড দেখার জন্য পরের পেইজে থাকা Next বাটন এ ক্লিক করবেন।
এভাবে ১৫ টি এড দেখবেন এবং Finish বাটন আসলে ক্লিক করে এড এ ক্লিক দিবেন।এড এ ক্লিক এর ২০ সেকেন্ড পর নিজে নিজেই অ্যাপ এ ব্যাক চলে আসবে।ব্যাস পেয়ে যাবেন ১.৫ টাকা।মাত্র একটি ক্লিকে।এভাবে আপনি দিনে ৫ টি ক্লিক করতে পারবেন।এতে করে ৩ টি অ্যাপ দিয়ে আপনি প্রতিদিন পাবেন ২১.৫ টাকা।যা প্রতি অ্যাপ এর মেইন ব্যালেন্স ১২ টাকা হলেই রিচাজ,বিটকয়েন,বিকাশে নিতে পারবেন।




পেমেন্ট প্রুফঃ


তাই দেরি না করে এখনই শুরু করে দিতে পারেন।
ধন্যবাদ আমাদের সাথে থাকার জন্য।

ঈদ মোবারক । ঈদ মোবারক । ঈদ মোবারক 


হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন আজ ঈদ উল আযহা এই দিনে সবাই তা সামর্থ্য অনুযায়ী উট, দুম্বা, গরু, ছাগল, ভেড়া, মহিষ ইত্যাদি কুরবানী দিয়ে থাকে তাই এটাকে ত্যাগের উৎসব ও ঈদ উল আযহা বলা হয়ে থাকে। এই দিনে প্রথমে ঈদগাহ ময়দানে সবাই একত্রিত হয়ে দুই রাকাত ঈদ উল আযহার নামাজ পড়ে কুরবানীর প্রস্তুতি নিয়ে থাকে। মুসলমানদের জন্য এটি উৎসবের দিন যার তারিখ স্থানীয়ভাবে জ্বিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে।
ইসলামী চান্দ্র পঞ্জিকায়, ঈদুল আযহা জ্বিলহজ্জের ১০ তারিখে পড়ে। আন্তর্জাতিক (গ্রেগরীয়) পঞ্জিকায় তারিখ প্রতি বছর ভিন্ন হয়, সাধারণত এক বছর থেকে আরেক বছর ১০ বা ১১ দিন করে কমতে থাকে।

ইসলামের বিভিন্ন বর্ণনা অনুযায়ী, মহান আল্লাহ তা’আলা ইসলামের রাসুল হযরত ইব্রাহীম (আঃ) কে স্বপ্নযোগে তাঁর সবচেয়ে প্রিয় বস্তুটি কুরবানি করার নির্দেশ দেনঃ “তুমি তোমার প্রিয় বস্তু আল্লাহর নামে কোরবানি কর”। ইব্রাহীম স্বপ্নে এমন আদেশ পেয়ে ১০টি উট কোরবানি করলেন। পুনরায় তিনি আবারো একই স্বপ্ন দেখলেন। অতঃপর ইব্রাহীম এবার ১০০টি উট কোরবানি করেন। এরপরেও তিনি একই স্বপ্ন দেখে ভাবলেন, আমার কাছে তো এ মুহূর্তে প্রিয় পুত্র ইসমাইল (আ.) ছাড়া আর কোনো প্রিয় বস্তু নেই। তখন তিনি পুত্রকে কোরবানির উদ্দেশ্যে প্রস্তুতিসহ আরাফাতের ময়দানের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। এ সময় শয়তান আল্লাহর আদেশ পালন করা থেকে বিরত করার জন্য ইব্রাহীম ও তার পরিবারকে প্রলুব্ধ করেছিল, এবং ইব্রাহীম শয়তানকে পাথর ছুঁড়ে মেরেছিলেন। শয়তানকে তার প্রত্যাখ্যানের কথা স্মরণে হজ্জের সময় শয়তানের অবস্থানের চিহ্ন স্বরূপ নির্মিত ৩টি স্তম্ভে প্রতীকী পাথর নিক্ষেপ করা হয়।
যখন ইব্রাহীম (আঃ) আরাফাত পর্বতের উপর তাঁর পুত্রকে কোরবানি দেয়ার জন্য গলদেশে ছুরি চালানোর চেষ্টা করেন, তখন তিনি বিস্মিত হয়ে দেখেন যে তাঁর পুত্রের পরিবর্তে একটি প্রাণী কোরবানি হয়েছে এবং তাঁর পুত্রের কোন ক্ষতি হয়নি। ইব্রাহীম (আঃ) আল্লাহ’র আদেশ পালন করার দ্বারা কঠিন পরীক্ষায় উর্ত্তীর্ণ হন। এটি ছিল ছয় সঙ্গিখ্যক পরীক্ষা। এতে সন্তুষ্ট হয়ে আল্লাহ ইব্রাহীম (আঃ) কে তার খলিল (বন্ধু) হিসাবে গ্রহণ করেন।
কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন,
১০০। অবশেষে আমি তাহাকে প্রশাশু বালকের (এসমায়িলনামক পুত্রের) সুসংবাদ দান করিলাম।
১০১। পরে যখন সে তাহার সঙ্গে দৌড়িবার বয়ঃপ্রাপ্ত হইল, তখন সে বলিল, “হে আমার নন্দন, নিশ্চয় আমি স্বপ্নে দেখিয়াছি যে, সত্যই আমি তোমাকে বলিদান করিতেছি ; অতএব তুমি কি দেখিতেছ, দেখ। সে বুলিল “হে আমার পিতা, যে বিষয়ে আদিষ্ট হইয়াছ, তাহা কর ; ঈশ্বরেচ্ছায় তুমি আমাকে অবশ্য সহিষ্ণুদিগের অন্তর্গত পাইবে”।
১০২। পরে যখন তাহারা দুই জনে (ঈশ্বরাজ্ঞার) অনুগত হইল, এবং সে তাহাকে (ছেদন করিতে) ললাটের অভিমুখে ফেলিল।
১০৩। এবং আমি তাহাকে ডাকিলাম যে, 'হে এব্রাহিম, ।
১০৪। সত্যই তুমি স্বপ্নকে সপ্রমাণ করিয়াচ; নিশ্চয় আমি এইরূপে হিতকারী লোকদিগকে বিনিময় দান করিয়া থাকি’ ।
১০৫। নিশ্চয় ইহা সেই স্পষ্ট পরীক্ষা।
১০৬। আমি তাহাকে বৃহৎবলি (শৃঙ্গযুক্ত পুং মেষ) বিনিময় দান করিলাম।
১০৭। এবং তাহার সম্বন্ধে (সৎপ্রশংসা) ভবিষ্যদ্বংশীয়দিগের প্রতি রাখিলাম।
১০৮। এব্রাহিমের প্রতি সেলাম । হৌক।
১০৯। এই রূপে আমি হিতকারীদিগকে বিনিময় দান করি।
১১০। নিশ্চয়ই সে আমার বিশ্বাসী দাসদিগের অন্তর্গত ছিল।
১১১। আমি তাহাকে সাধুদিগের অন্তর্গত এক প্রেরিত পুরুষ এসহাক (পুত্রের) সম্বন্ধে সুসংবাদ দান করিয়াছিলাম।
১১২। এবং তাহার প্রতি ও এসহাকের প্রতি আশীৰ্ব্বাদ করিয়াছিলাম, এবং তাহাদের সস্তানগণের মধ্যে কতক হিতকারী ও কতক আপন জীবনসম্বন্ধে স্পষ্ট অত্যাচারী হয়।
— কোরআন, সূরা ৩৭ (আস-ছাফফাত), আয়াত ১০০-১১২


তাহলে বুঝতেই পারছেন কিভাবে এর উৎপত্তি হয়েছিল এবার আসি অন্য প্রসংগে - কুরবানীঃ

ইসলাম মতে ঈদুল আযহার দিনে যার যাকাত দেয়ার সামর্থ্য আছে অর্থাৎ যার কাছে ঈদের দিন প্রত্যূষে সাড়ে সাত তোলা স্বর্ণ বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রৌপ্য বা সমপরিমাণ সম্পদ (যেমন জমানো টাকা) আছে তাঁর ওপর ঈদুল আযহা উপলক্ষে পশু কুরবানি করা ওয়াজীব। ঈদুল আযহার দিন থেকে শুরু করে পরবর্তী দুইদিন পশু কুরবানির জন্য নির্ধারিত। মুসাফির বা ভ্রমণকারির ওপর কুরবানি করা ওয়াজিব নয়| ঈদুল আযহার নামাজ শেষে কুরবানী করতে হবে। ঈদুল আযহার নামাজের আগে কুরবানি করা সঠিক নয়।
বাংলাদেশের মুসলিমরা সাধারণত গরু ও ছাগল কুরবানি দিয়ে থাকেন। এছাড়া কেউ কেউ ভেড়া, মহিষ, উট, দুম্বাও কোরবানি দিয়ে থাকেন। ২০১৯ সালে বাংলাদেশে কোরবানির পশুর চাহিদা ছিল ১ কোটি ১০ লক্ষ আর বাংলাদেশে কোরবানির উপযোগী পশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ১৮ লক্ষ। ২০১৮ সালে বাংলাদেশে কোরবানিকৃত পশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ৫ লাখ। এক ব্যক্তি একটি গরু, মহিষ, উট, ছাগল, ভেড়া বা দুম্বা কুরবানি করতে পারেন। তবে গরু, মহিষ ও উটের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৭ ভাগে কুরবানি করা যায় অর্থাৎ ২, ৩, ৫ বা ৭ ব্যক্তি একটি গরু কুরবানিতে শরিক হতে পারেন। কুরবানির ছাগলের বয়স কমপক্ষে ১ বছর হতে হবে। গরু ও মহিষের বয়স কমপক্ষে ২ বছর হতে হবে। নিজ হাতে কুরবানি করা ভাল। কুরবানি প্রাণীর দক্ষিণ দিকে রেখে কিবলামুখী করে, ধারালো অস্ত্র দিয়ে 'বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার' বলে জবাই করতে হয়।
সাধারণত আমাদের দেশে কুরবানির মাংস তিন ভাগে ভাগ করে 
১ ভাগ গরিব-দুঃস্থদের মধ্যে 
২ ভাগ আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে এবং 
৩ ভাগ নিজেদের খাওয়ার জন্য রাখা হয়। 

তবে মাংস বিতরণের কোন সুস্পষ্ট হুকুম নেই কারন কুরবানির হুকুম পশু জবেহ্‌ হওয়ার দ্বারা পালন হয়ে যায়। কুরবানির পশুর চামড়া বিক্রির অর্থ দান করে দেয়ার নির্দেশ রয়েছে। 

মজা করুন , আত্মীয়দের সাথে সময় উপভোগ করুন আর অবশ্যই DarkMagician.Xyz প্রতিদিন ভিজিট করুন
সবাইকে শুভেচ্ছা ও ঈদের অভিনন্দন জানিয়ে আজকের পোষ্ট এখানেই শেষ করছি।

সৌজন্যেঃ সাইবার প্রিন্স